kalerkantho

রবিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১০ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২৮ সফর ১৪৪৪

মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করায় গৃহবধূর আত্মহত্যা

জয়পুরহাট প্রতিনিধি   

৭ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করায় গৃহবধূর আত্মহত্যা

তুচ্ছ ঘটনায় মামলার ভয় দেখিয়ে টাকা দাবি করায় প্রতারকচক্রের কূটকৌশলের কারণে আম্বিয়া বেগম (৪২) নামের এক দরিদ্র গৃহবধূ আত্মহত্যা করেছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল পৌরসভার ভাশিলা পশ্চিমপাড়া মহল্লায় এ ঘটনা ঘটে।

পরিবারের দাবি, তুচ্ছ ঘটনায় সাদ্দাম ও জুয়েল নামের স্থানীয় দুই দালাল পুলিশ এনে মামলার ভয় দেখিয়ে বারবার মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করায় আম্বিয়া আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন।

জানা গেছে, কয়েক দিন আগে প্রতিবেশী গৃহবধূ সেলিনা খাতুনের সঙ্গে মোবাইল ফোন নিয়ে বিরোধে আম্বিয়া তাঁকে চড়-থাপ্পড় মারেন।

বিজ্ঞাপন

ঘটনার পরদিন থানায় মামলা হয়েছে জানিয়ে আম্বিয়াকে ভয় দেখিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে পুলিশের স্থানীয় দালাল ভাশিলা গ্রামের সাদ্দাম ও জুয়েল। বৃহস্পতিবার সকালে দালালদ্বয় ক্ষেতলাল থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আলমগীর হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে আম্বিয়ার বাড়ি আসে। এ সময় এসআই আলমগীর মামলা মীমাংসার কথা বলে আম্বিয়ার কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা দাবি করেন। এ নিয়ে একাধিকবার মামলা করার হুমকি দিলে শুক্রবার সন্ধ্যায় আম্বিয়া নিজ ঘরে কীটনাশক পান করেন। গুরুতর অবস্থায় জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে নেওয়ার পথে সন্ধ্যা ৭টার দিকে তিনি মারা যান।

প্রতিবেশী সেলিনা খাতুনের শাশুড়ি জ্যোত্স্না বেগম বলেন, ‘আম্বিয়ার সঙ্গে তাঁর পুত্রবধূ সেলিনার গণ্ডগোল হলেও তাঁরা থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। ’

পুলিশের উপপরিদর্শক আলমগীর হোসেন মোবাইলে বলেন, ‘অভিযোগ পেয়ে আম্বিয়ার বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করার পরামর্শ দিয়েছি। তাঁর কাছে কোনো টাকা দাবি করা হয়নি। ’

স্থানীয় কাউন্সিলর আব্দুল আজিজ বলেন, ‘টাকা নেওয়ার জন্য মিথ্যা মামলার ভয় দেখিয়ে স্থানীয় দালালচক্র মেন্টাল টর্চার করার কারণেই আম্বিয়া আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন। ’

ক্ষেতলাল থানার উপপরিদর্শক মোখলেছুর রহমান জানান, এ ঘটনায় থানায় ইউডি মামলা করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা