kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০২২ । ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

নদীতে ভেসে উঠছে হাজার হাজার মৃত-অর্ধমৃত মাছ

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি   

৩ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নদীতে ভেসে উঠছে হাজার হাজার মৃত-অর্ধমৃত মাছ

চুয়াডাঙ্গার মাথাভাঙ্গা নদীতে হাজার হাজার মৃত-অর্ধমৃত মাছ ভেসে উঠছে। খবর জানাজানি হওয়ার পর থেকে শত শত মানুষ ওই নদীতে মাছ ধরতে নামে। ভেসে ওঠা মাছের বেশির ভাগই পুঁটি, বাইম ও অন্যান্য ছোট মাছ। নদীর পানিতে অক্সিজেন কমে যাওয়ায় এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে মৎস্য বিভাগ জানিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

চুয়াডাঙ্গা জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া মাথাভাঙ্গা নদীর আলমডাঙ্গা, চুয়াডাঙ্গা সদর ও দামুড়হুদা উপজেলার অংশে মাছ ভেসে ওঠা শুরু হয়। সোমবার রাতে শত শত মানুষ নদীতে নেমে মাছ ধরতে থাকে। কেউ জাল নিয়ে, কেউ শাড়ি-গামছা নিয়ে নেমে পড়ে।

সদর উপজেলার দৌলাতদিয়া গ্রামের ফল বিক্রেতা আজিজুল ইসলাম জানান, সোমবার রাত ১১টার দিকে তিনি খবর পান, নদীতে মাছ ভেসে উঠেছে এবং অনেক মানুষ মাছ ধরা শুরু করেছে। তিনিও বাড়ি থেকে গামছা নিয়ে নদীতে নেমে পড়ে। এক ঘণ্টায় তিনি তিন কেজি পুঁটি মাছ ধরতে পারেন।

গতকাল মঙ্গলবার সারা দিন অনেককে ওই নদীতে গামছা ও জাল দিয়ে মাছ ধরতে দেখা যায়।

মাছ ভেসে ওঠার খবর পাওয়ার পর সোমবার রাতেই সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম ভুইয়া তাঁর ফেসবুক পেইজে ভেসে ওঠা মাছ ধরা ও খাওয়া থেকে বিরত থাকতে সবাইকে অনুরোধ জানান। তিনি লেখেন, ‘মাথাভাঙ্গা নদীতে মাছ ভেসে উঠেছে। এটা কোনো সাধারণ ঘটনা নয়। মাছ না ধরার জন্য, এই মাছ না খাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হলো। চুয়াডাঙ্গা সদর, আলমডাঙ্গা ও দামুড়হুদায় এই অস্বাভাবিক ঘটনা দেখা যাচ্ছে। ’

মাছ মারা যাওয়া ও ভেসে ওঠার কারণ জানতে জেলা মৎস্য বিভাগ ওই নদীর পানি পরীক্ষা করেছে। পরীক্ষায় জানা যায়, পানিতে অক্সিজেনের পরিমাণ খুবই কম। এ কারণেই মাছ মারা যাচ্ছে ও ভেসে উঠছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষা অব্যাহত আছে। বৃষ্টি হলে নদীর পানিতে অক্সিজেনের মাত্রা বেড়ে সঠিক অবস্থায় যাবে বলে অভিমত দিয়েছে মৎস্য বিভাগ। একই মন্তব্য করেছেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম ভুইয়া।



সাতদিনের সেরা