kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০২২ । ১৬ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ঢাকার কামরাঙ্গীর চর

বিরোধ ঠেকাতে গিয়ে তরুণ নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানী ঢাকার কামরাঙ্গীর চরে দুই পক্ষের মারামারি ঠেকাতে গিয়ে ছুরিকাঘাতে জীবন চৌধুরী (১৯) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে দুই তরুণ। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কলেজ রোডের সাংবাদিক গলিতে এ ঘটনা ঘটে। আহত অবস্থায় তিনজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

গতকাল শনিবার সকাল ৯টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জীবনের মৃত্যু হয়।

আহতরা হলো রাফি আহমেদ (১৮) ও মো. বিজয় (১৭)।

জীবনের পরিবার জানায়, জীবন কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার পশ্চিমঘর গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে। তিনি কামরাঙ্গীর চরে কলেজ রোডের নুরু মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তিন ভাই, এক বোনের মধ্যে জীবন বড়। আব্দুল হাকিম জানান, জীবন দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন। কামরাঙ্গীর চরে একটি কার্টনের কারাখানায় কাজ করতেন তিনি।

কামরাঙ্গীর চর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, একটি মোবাইল ফোন হারিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মারামারি ঘটনায় ছুরিকাঘাতে তৃতীয় পক্ষের একজন মারা যান। আহত হয় দুজন।

ওসি জানান, নোমান নামের একজনের মোবাইল ফোন হারিয়ে যায়। এ নিয়ে তিনি তাঁর রুমমেট শামীমকে সন্দেহ করেন। এতে শামীম ও নোমানের মধ্যে ঝগড়া ও হাতাহাতি হয়। পরে নোমান তাঁর বন্ধু হৃদয়, বাবুসহ কয়েকজনকে নিয়ে শুক্রবার রাতে সাংবাদিক গলিতে শামীমের ওপর হামলা করেন। সেখানে অবস্থান করা এলাকার কয়েকটি ছেলে এই মারামারিতে বাধা দেয়। এক পর্যায়ে হৃদয়, বাবু, নোমান মিলে জীবনসহ তিনজনকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেন। এ ঘটনায় দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। বাকিদের আটকের চেষ্টা চলছে।

নিহতের বন্ধু মো. নীরব বলেন, ‘আমরা বেশ কয়েকজন মিলে আলো জ্বেলে কলেজ রোডে ক্রিকেট খেলি। পরে বিজয়সহ আট বন্ধু কলেজের ১ নম্বর গেটে বসে আড্ডা দিচ্ছিলাম। এ সময় অন্য এলাকার কয়েকজন সেখানে জড়ো হয়। সেখানে মোবাইল ফোনকে কেন্দ্র করে তাদের দুই পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। আমরা বাধা দেওয়ার চেষ্টা করলে নাজমুল, হৃদয়, বাবুসহ কয়েকজন বিজয়, রাফি ও জীবনকে ছুরিকাঘাত করে। এর আগে তাদের সঙ্গে কোনো ঝামেলা ছিল না। ’



সাতদিনের সেরা