kalerkantho

শুক্রবার । ৭ অক্টোবর ২০২২ । ২২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

সড়ক দুর্ঘটনা

ট্রাকচাপায় চার শিক্ষকসহ নিহত ৫

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তাঁরা পাঁচজন শিক্ষক। ছয় দিনের প্রশিক্ষণে অংশ নিতে নওগাঁর নিয়ামতপুর সদর থেকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে জেলার নামাজগড় মাদরাসায় যাচ্ছিলেন। পথে বিপরীত দিক থেকে আসা মালবোঝাই একটি ট্রাক অটোরিকশাটিকে চাপা দিয়ে রাস্তার পাশে উল্টে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারিয়েছেন চার শিক্ষক ও অটোরিকশাটির চালক।

বিজ্ঞাপন

গুরুতর আহত হয়েছেন আরেক শিক্ষক। গতকাল শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বলিহার বাবলাতলি এলাকায় নওগাঁ-রাজশাহী মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

একই দিন সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে একটি ট্রাক অটোরিকশাকে ধাক্কা দিলে অটোরিকশাটির যাত্রী মা ও ছেলে নিহত এবং পরিবারটির তিন সদস্যসহ চারজন গুরুতর আহত হয়েছে। এ ছাড়া ভোলা, মানিকগঞ্জের সিংগাইর ও পাবনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে ও গতকাল সড়ক দুর্ঘটনায় দুজন নিহত এবং ৩২ জন আহত হয়েছে।

নওগাঁয় নিহতরা হলেন নিয়ামতপুর উপজেলার পানিহারা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন (৪৮), বেলকাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মকবুল হোসেন (৫৮), রামকুড়া আশরাফুল উলুম দাখিল মাদরাসার সহকারী শিক্ষক লেলিন সরকার (২৭), গুজিশহর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জান্নাতুন নেছা (৩৫) এবং অটোরিকশার চালক সেলিম রেজা (৪২)। আহত শিক্ষক নুরজাহান বেগমকে (৩০) রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার অভিযান চালায়।

রাজশাহীর বিভাগীয় কমিশনার জি এস এম জাফরুল্লাহ (এনডিসি), নওগাঁর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শিহাব রায়হানসহ পুলিশ ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নওগাঁ সদর ইউএনও মির্জা ইমাম কালের কণ্ঠকে বলেন, দুর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের পরিবারকে ২৫ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হবে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার তেলিখাল এলাকায় গতকাল ভোরে দুর্ঘটনাটি ঘটে। নিহতরা হলেন উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের অ্যাংরাজ মিয়ার স্ত্রী হানুফা বেগম (৪২) ও ছেলে শফিকুল ইসলাম। আহতরা হলো অ্যাংরাজ মিয়া, পরিবারের অন্য দুই সদস্য ও অটোরিকশাচালক।

অটোরিকশায় পরিবারের পাঁচ সদস্য নিয়ে কোম্পানীগঞ্জ থেকে সিলেটে যাচ্ছিলেন অ্যাংরাজ মিয়া। তেলিখাল এলাকায় আসামাত্র বিপরীত দিক থেকে মালবাহী একটি ট্রাক অটোরিকশাটিকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশা দুমড়েমুচড়ে দুর্ঘটনাস্থলেই হানুফা বেগম ও শফিকুলের মৃত্যু হয়। আহতদের সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ভোলার লালমোহন উপজেলার নতুন মসজিদ এলাকায় মঙ্গলসিকদার সড়কে বৃহস্পতিবার রাতে পেছন থেকে কাভার্ড ভ্যানের চাপায় এক অটোরিকশার যাত্রী মো. মাকসুদ (৪২) নিহত হন। তিনি উপজেলার পূর্ব চরকালাচাঁদ এলাকার তাজুল ইসলামের ছেলে। নিহত মাকসুদের স্ত্রী আমেনা বেগম জানান, এক মাস আগে তাঁদের বড় মেয়ের বিয়ে হয়। মেয়ের শ্বশুরবাড়ি থেকে গতকাল মেহমান আসার কথা ছিল। তাই বাজার করতে অটোরিকশায় করে বাড়ি থেকে বাজারে যাচ্ছিলেন মাকসুদ।

লালমোহন থানার ওসি মো. মাকসুদুর রহমান মুরাদ বলেন, নিহতের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গতকাল সকালে একটি গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে গভীর খাদে পড়ে যায়। এতে গাড়িতে থাকা এক শ্রমিক নিহত ও দুজন আহত হয়। নিহত মাইদুল ইসলাম (২৫) টাঙ্গাইলের গোপালপুরের সোনামুই গ্রামের শাহজাহান মিয়ার ছেলে। আহত দুই ব্যক্তিকে ঢাকার জাতীয় অর্থোপেডিক (পঙ্গু) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সিংগাইর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) বলেন, নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পাবনা সদর উপজেলার টেবুনিয়া ও জালালপুর বাজারে গতকাল দুপুরে দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় চালকসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঢাকা-পাবনা মহাসড়কের জালালপুর বাজারে সি লাইন পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের সঙ্গে যাত্রীবাহী রয়েল ডাচ বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে বাসের দুই চালকসহ অন্তত ২৫ যাত্রী আহত হয়। এক ভ্যানচালককে বাঁচাতে গিয়ে দুর্ঘটনাটি ঘটে বলে জানা গেছে। অন্যদিকে পাবনা-ঈশ্বরদী মহাসড়কের টেবুনিয়া সিড গোডাউন মোড়ে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই চালক, হেল্পারসহ পাঁচজন আহত হয়। উভয় দুর্ঘটনায় আহতদের পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

পাবনা সদর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, থানা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায় এবং মহাসড়ক থেকে দুর্ঘটনাকবলিত বাস ও ট্রাক সরিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

[প্রতিবেদনে তথ্য দিয়েছেন কালের কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক এবং জেলা ও উপজেলা প্রতিনিধিরা। ]

 

 



সাতদিনের সেরা