kalerkantho

শনিবার । ১৩ আগস্ট ২০২২ । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৪ মহররম ১৪৪৪  

বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু রাইসার পাশে বসুন্ধরার এমডি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু রাইসার পাশে বসুন্ধরার এমডি

বিরল রোগে আক্রান্ত শিশু রাইসার বাবা রহমান মাসুদের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন বসুন্ধরা গ্রুপের পরিচালক সাবরিনা সোবহান, তাঁর ছেলে আহমেদ ওয়ালিদ সোবহান ও মেয়ে আরিশা আফরোজা সোবহান। ছবি : কালের কণ্ঠ

বুকের ধন এটুকুন শিশুকন্যাকে নিয়ে দুশ্চিন্তার ভাঁজ রহমান মাসুদের কপালে। সাড়ে তিন বছর বয়সী একমাত্র মেয়ে ঋষিতা রাইসা আক্রান্ত বিরল দুরারোগ্য রোগে। একে তো অচেনা রোগ, তার ওপর চিকিৎসাও অত্যন্ত ব্যয়বহুল। মেয়ের চিকিৎসা চালিয়ে নিতে হিমশিম খাচ্ছিলেন বাবা রহমান মাসুদ।

বিজ্ঞাপন

এই বাবার পাশে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। শিশু রাইসার চিকিৎসায় এগিয়ে এসেছেন বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীর।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে সায়েম সোবহান আনভীরের পক্ষে তাঁর সহধর্মিণী বসুন্ধরা গ্রুপের পরিচালক সাবরিনা সোবহান, তাঁর ছেলে আহমেদ ওয়ালিদ সোবহান ও মেয়ে আরিশা আফরোজা সোবহান ১০ লাখ টাকার অনুদানের চেক তুলে দেন রাইসার বাবার হাতে। তাঁরা এ সময় শিশু রাইসার দ্রুত রোগমুক্তি কামনা করেন।

রহমান মাসুদ পেশায় সাংবাদিক। বর্তমানে তিনি অনলাইন নিউজপোর্টাল নিউজবাংলার বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত। এর আগে তিনি বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে কাজ করেছেন। অনুদানের চেক পেয়ে স্বস্তি প্রকাশ করে তিনি বলেন, ‘১০ বছর বসুন্ধরা গ্রুপের মালিকানাধীন গণমাধ্যমে কাজ করেছি। এখনো নিজেকে বসুন্ধরার একজন মনে করি। আমার একমাত্র মেয়ে বিরল রোগে আক্রান্ত হওয়ায় তার চিকিৎসা নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলাম। বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীর আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন, এ জন্য তাঁর প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। ’

রহমান মাসুদ আরো জানান, মাস ছয়েক আগে রাইসা অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারে নেমে আসে দুশ্চিন্তার মেঘ। হাসপাতালে চিকিৎসা করানোর এক পর্যায়ে জানতে পারেন, রাইসা দুরারোগ্য হার্সপাঙ ও রেক্টোরাল ইনফাংশনাল ডিজিজে ভুগছে। বর্তমানে ভারতের ভেলোরে ক্রিশ্চিয়ান মেডিক্যাল কলেজ (সিএমসি) হাসপাতালের পেডিয়াট্রিক সার্জন অরুন লালের অধীনে চিকিৎসা চলছে। সিএমসি হাসপাতালের চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে রহমান মাসুদ বলেন, ‘রোগটি বিরল হলেও নিরাময়যোগ্য। এর জন্য একটি বড় ধরনের সার্জারি করতে হবে। সার্জারিসহ পুরো চিকিৎসার ব্যয় অনেক বেশি। বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি আমাদের পাশে দাঁড়ানোয় মেয়ের চিকিৎসা নিয়ে মনের ভেতরে বয়ে বেড়ানো অস্বস্তি অনেকখানি কেটে গেছে। মেয়ের সুস্থতার জন্য সবার দোয়া চাই। ’

 



সাতদিনের সেরা