kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

গান কথা কবিতা নাচে সাড়ম্বরে বর্ষাবরণ

সালেহ ফুয়াদ   

১৬ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গান কথা কবিতা নাচে সাড়ম্বরে বর্ষাবরণ

বর্ষার আগমনে গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় টিএসসি প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বর্ষা উত্সব উদযাপন পরিষদ। এতে নৃত্য পরিবেশন করেন শিল্পীরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

বর্ষা প্রকৃতিকে করে তোলে সবুজ ও সতেজ। তার ছাপ পড়ে মনেও। তাই নানা রকম সাংস্কৃতিক আয়োজন থাকে এ সময়। ঋতুচক্রের আষাঢ়স্য প্রথম দিনটিকে ঘিরে গতকাল বুধবার সকাল থেকেই ব্যস্ত ছিল রাজধানীর উত্সব-আয়োজনের কেন্দ্রগুলো।

বিজ্ঞাপন

বাঁশি, সেতার বাদন, নৃত্য, সংগীত আর আবৃত্তিতে ঘটা করেই হয়েছে বর্ষাবন্দনা।

সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের বাইরের প্রাঙ্গণে বর্ষা উদযাপন অনুষ্ঠান শুরু করে বর্ষা উদযাপন পরিষদ। যন্ত্রশিল্পী হাসান আলীর বাঁশি দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠীর শিল্পীরা নীল রঙের শাড়ি আর পাঞ্জাবি পরে রাগ ভৈরবী পরিবেশনের মধ্য দিয়ে সংগীতের সূচনা করেন। সম্মিলিতভাবে তাঁরা পরিবেশন করেন ‘বরিষ ধরা মাঝে শান্তির বারি/শুষ্ক হূদয় লয়ে আছে দাঁড়াইয়ে/ঊর্ধ্বমুখে নরনারী’। মাসকুর-এ-সাত্তার কল্লোল আবৃত্তি করেন কবি আবুল হাসানের ‘বৃষ্টি চিহ্নিত ভালোবাসা’ কবিতাটি। শিল্পী বিমান চন্দ্র বিশ্বাস কণ্ঠে তোলেন উকিল মুন্সির গান। তিনি পরিবেশন করেন ‘আষাঢ় মাইসা ভাসা পানি রে...’।

সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী ২০০৯ সাল থেকে প্রতিবছর বর্ষা উদযাপন করে আসছে। উত্সবের পরিসর বাড়াতে গতবার থেকে আয়োজনটি হচ্ছে বর্ষা উত্সব উদযাপন পরিষদ নামে। অনুষ্ঠানে সবুজ পৃথিবী গড়ার লক্ষ্যে প্রতীকী অর্থে শিশু-কিশোরদের মধ্যে বনজ, ফলদ ও ঔষধি গাছের চারা তুলে দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামানসহ বিশিষ্টজনরা।

 



সাতদিনের সেরা