kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

কেরানীগঞ্জে স্ত্রী হত্যায় স্বামী গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকার কেরানীগঞ্জ থানার বরিশুর এলাকায় রেশমা আক্তারের সঙ্গে কাতারপ্রবাসী এক ব্যক্তির সম্পর্ক রয়েছে—এমন সন্দেহে স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা করেন তাঁর স্বামী নুরুল ইসলাম। এরপর গ্রেপ্তার এড়াতে বরিশাল, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপন ছিলেন তিনি। রবিবার রাজধানীর কাকরাইল এলাকা থেকে নুরুলকে গ্রেপ্তার করে র্যাব।

গতকাল রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র?্যাব মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র্যাব-১০-এর অধিনায়ক (সিও) ডিআইজি মাহফুজুর রহমান।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, ঘটনার দিন ১৭ মে সকালে রেশমা ও নুরুল ইসলাম দুজনে মিলে তাঁদের ছেলে মো. ইয়াসিনকে (১০) মাদরাসায় ভর্তি করাতে যান। মাদরাসা থেকে ফেরার পথে ইয়াসিনকে তার নানার বাসায় পাঠিয়ে দিয়ে দুজনে পাসপোর্ট ফটোকপি করতে যান। এর পরই দুপুর পৌনে ১টার দিকে নুরুল তাঁর শ্বশুরের বাসায় এসে জানান, রেশমাকে তাঁর ভাড়া করা মেসে আটকে রেখে এসেছেন। পরে রেশমার স্বজনরা মেসের দরজা ভেঙে গলা কাটা রক্তাক্ত অবস্থায় মরদেহ ফ্লোরে পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর নিহত রেশমার বোন বাদী হয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত নুরুল ইসলামসহ অজ্ঞাতপরিচয় দু-তিনজনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা করেন।

র্যাব-১০ অধিনায়ক মাহফুজুর রহমান বলেন, ১২ বছর আগে রেশমার সঙ্গে নুরুল ইসলামের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর স্বামীর অনুমতি নিয়ে রেশমা  জর্দান চলে যান। জর্দানে থাকা অবস্থায় রেশমার সঙ্গে নুরুল ইসলামের সাংসারিক জীবনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিবাদ তৈরি হয়।



সাতদিনের সেরা