kalerkantho

শনিবার । ১৩ আগস্ট ২০২২ । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৪ মহররম ১৪৪৪  

ইমিগ্রেশনে যাত্রীদের অযথা জিজ্ঞাসাবাদ নয়

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইমিগ্রেশনে যাত্রীদের অযথা জিজ্ঞাসাবাদ নয়

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রয়োজন ছাড়া যাত্রীদের ইমিগ্রেশনে জিজ্ঞাসাবাদ করা যাবে না বলে সতর্ক করেছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী। যাত্রীদের হয়রানি করলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি। গতকাল ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিভিন্ন পরিষেবা পরিদর্শনকালে এই  হুঁশিয়ারি জানান তিনি।

এদিকে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া মাংকি পক্স ভাইরাস সম্পর্কে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মোহাম্মদ মফিদুর রহমান বলেন, ঢাকাসহ দেশের সব বিমানবন্দর সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশে আসা সব যাত্রীকে স্ক্রিনিং করা হবে।

বিমানবন্দর পরিদর্শন শেষে প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, বিমানবন্দরের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীর দায়িত্ব পালনে অবহেলা পাওয়া গেলে বা যাত্রী হয়রানি করলে তাঁদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, ‘ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি, প্রত্যেক যাত্রীকে যেন জিজ্ঞাসাবাদ করা না হয়, হয়রানি করা না হয়। যাঁদের তাঁরা প্রয়োজন মনে করবেন, তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করবেন। প্রয়োজনে তাঁদের আলাদা করে জিজ্ঞাসা করা হবে। ’

বিমান প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘কাস্টমসের সঙ্গে কথা হয়েছে, যাতে সব যাত্রীর ব্যাগ চেক করা না হয়। কেবল তথ্যের ভিত্তিতে যাঁকে সন্দেহ হবে, তাঁকে চেক করা হবে এবং ১ থেকে ২ শতাংশ যাত্রীকে আলাদাভাবে নিয়ে চেক করতে হবে। চেক করতে গিয়ে যাত্রীদের আসা-যাওয়ায় যাতে কোনো হয়রানি না হয়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে। বিমানবন্দরে সেবা নির্বিঘ্ন করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ আছে। শিগগিরই যাতে ই-গেট চালু হয়, সেটির ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। ’

বিমানবন্দরের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং ব্যবস্থাপনা প্রসঙ্গে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটা দল করা হয়েছে। সপ্তাহে তিন দিন মন্ত্রণালয়ের লোকজন বিমানবন্দরে থাকেন। কোনো অব্যবস্থাপনা হয় কি না তাঁরা দেখেন। আমরা এখানে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলেছি। তাঁরা বলেছেন, সেবার মান ভালো। ইমিগ্রেশনে তাঁদের কোনো সমস্যা হয়নি। ’

বিমানবন্দরের গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিংয়ের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশে মাহবুব আলী বলেন, ‘বিমানবন্দরে যাঁরা ডিউটি করেন তাঁদের নির্দিষ্ট সময়ের আধঘণ্টা আগে ঢুকতে হবে। ডিউটি শেষে বের হতে হবে, যাতে আমরা যাত্রীদের সেবা নিশ্চিত করতে পারি। ’

 



সাতদিনের সেরা