kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

টাকা ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চান আমানতকারীরা

পিপলস লিজিং

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কম্পানিতে আটকে যাওয়া টাকা ফেরত পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন আমানতকারীরা। আমানতকারী কাউন্সিলের পক্ষ থেকে জনগণের অর্থের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থতার অভিযোগে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের পদত্যাগের দাবি করা হয়েছে। একই সঙ্গে কম্পানির সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক পি কে হালদারসহ অর্থ পাচারকারীদের শাস্তি দাবি করেছেন তাঁরা।

গতকাল রবিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি তুলে ধরেন পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কম্পানিতে বিনিয়োগ করা ছয় হাজার আমানতকারীর পক্ষে কাউন্সিলের প্রধান সমন্বয়কারী ও কনভেনার মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।

বিজ্ঞাপন

এ সময় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক রানা ঘোষ, যুগ্ম সমন্বয়ক কামাল আহমেদ ও সামিয়া বিনতে মাসুমসহ

অন্যান্য আমানতকারীরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে আতিকুর রহমান বলেন, ‘আমাদের নিঃস্ব-অসহায় জীবনের কথা বিবেচনা করে যেন পিপলস লিজিংয়ে রাখা অর্থ দ্রুত ফেরত পেতে পারি, সে জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। একই সঙ্গে অবিলম্বে পিপলস লিজিংয়ে লুটপাটে জড়িত পি কে হালদারসহ দোষীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। ’ অর্থ লুটে জড়িতরা যাতে বিদেশে পালিয়ে যেতে না পারেন, সে জন্য তাঁদের বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা এবং অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের পাশাপাশি সম্পদ ও ব্যাংক হিসাব জব্দের দাবি জানান তিনি।

তিনি বলেন, ‘আমরা মনে করি, বাংলাদেশ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ একান্ত প্রয়োজন। পিপলস লিজিংয়ের ব্যক্তি ও ক্ষুদ্র আমানতকারীদের আমানতের অর্থ দ্রুত ফিরিয়ে দিয়ে প্রতিষ্ঠানটিকে রক্ষা করুন। ’ বর্তমান সরকার যেভাবে ফারমার্স ব্যাংকের অবসায়ন না করে পদ্মা ব্যাংক নামে পুনর্গঠন করেছে, ঠিক সেভাবেই পিপলস লিজিং পুনর্গঠন করে দ্রুত গ্রাহকদের অর্থ ফেরত দেওয়ার দাবি জানান তিনি।

বিদেশ থেকে পাচারকৃত অর্থ ফেরত এনে তা বিনিয়োগকারীদের দেওয়ার প্রস্তাবের সমালোচনা করে সংগঠনের যুগ্ম সমন্বয়ক সামিয়া বিনতে মাসুম বলেন, ‘আমরা পি কে হালদারের কাছে টাকা রাখিনি। আমরা কম্পানিতে টাকা রেখেছি। সেটা বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদিত কম্পানি। সেখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষক ছিল। সেই টাকা উধাও হয় কিভাবে? বাংলাদেশ ব্যাংক কি দেখেনি? বাংলাদেশ ব্যাংক এটার জন্য দায়ী। তারা এই দায় এড়াতে পারে না। আমানতকারীদের অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংককেই ফেরত দিতে হবে। ’

সংবাদ সম্মেলনের পর প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে আমানতকারীরা। এতে পাঁচ শতাধিক আমানতকারী অংশগ্রহণ করেন।



সাতদিনের সেরা