kalerkantho

শুক্রবার । ৭ অক্টোবর ২০২২ । ২২ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

চট্টগ্রামে যুবলীগের সম্মেলন

সভাপতি-সম্পাদকের পদ চান ১৮৯ নেতা

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলায় প্রথম, উত্তর জেলায় ১৯ বছর আর নগরে ১৮ বছর পর যুবলীগের সম্মেলন

নূপুর দেব, চট্টগ্রাম   

২২ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সভাপতি-সম্পাদকের পদ চান ১৮৯ নেতা

চট্টগ্রামের রাজনীতিতে এখন আলোচনায় যুবলীগের সম্মেলন। আগামী ২৮, ২৯ ও ৩০ মে টানা তিন দিন অনুষ্ঠিতব্য তিনটি সম্মেলন ঘিরে রাজনৈতিক অঙ্গন সরব হয়ে উঠেছে। দীর্ঘদিন পর যুবলীগের চট্টগ্রাম মহানগর এবং দুই জেলা (উত্তর ও দক্ষিণ) কমিটির সম্মেলন ঘিরে নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা লক্ষ করা গেছে। তিন কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ছয়টি পদের দাবিদার ১৮৯ জন নেতা।

বিজ্ঞাপন

তাই নতুন কমিটির নেতৃত্বে কারা আসছেন—তা নিয়ে চলছে তুমুল জল্পনা-কল্পনা।

সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যুবলীগের এসব সম্মেলন নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেন স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগসহ সরকারদলীয় বিভিন্ন সংগঠনের নানা পর্যায়ের নেতারা। নেতারা চাইছেন নিজেদের অনুগত ও পছন্দের প্রার্থীরা নেতৃত্বে আসুক। আর আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতাদের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ পদ পেতে যুবলীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন পদপ্রত্যাশীরা। চলছে দৌড়ঝাঁপ।

জানা গেছে, যুবলীগের কেন্দ্রীয় শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের উপস্থিতিতে আগামী ৩০ মে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে ২৮ মে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগ ও ২৯ মে চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে মহানগর সম্মেলন হবে নগরের পাঁচলাইশ এলাকায় দ্য কিং অব চিটাগং কমিউনিটি সেন্টারে। আর চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সম্মেলন পটিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ এবং উত্তর জেলা যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে হাটহাজারী পার্বতী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে। চট্টগ্রাম যুবলীগের বহু প্রতীক্ষিত এ তিন সম্মেলনে প্রথম অধিবেশনের পর দ্বিতীয় পর্বে (কাউন্সিল) সাধারণ কাউন্সিলরদের ভোটে নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত হবে, নাকি সম্মেলন-পরবর্তী কেন্দ্র থেকে নতুন কমিটি ঘোষণা করা হবে—তা নিয়েও চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ।

এদিকে গত কয়েক দিনে ডিজিটাল ব্যানার, ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ডে ছেয়ে গেছে চট্টগ্রাম নগরী। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ কমিটির অন্যান্য পদপ্রত্যাশীরা এসব প্রচারপত্রে নিজেদের অবস্থান জানান দিচ্ছেন। একই অবস্থা চট্টগ্রাম উত্তর ও চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের আসন্ন সম্মেলন নিয়েও। ধারাবাহিক সম্মেলন নিয়ে কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে।

এদিকে আসন্ন সম্মেলন সামনে রেখে বিভিন্ন পদপ্রত্যাশীর কাছ থেকে জীবনবৃত্তান্ত সংগ্রহ করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। তিন সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মোট ছয়টি পদের বিপরীতে জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়েছে ১৮৯টি। এ ছাড়া অন্য পদগুলোতে তিন কমিটি মিলে দুই হাজারেরও বেশি জীবনবৃত্তান্ত জমা পড়েছে।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বাচ্চু গতকাল শনিবার বিকেলে বলেন, ‘সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ভোটাভুটিতে নেতৃত্ব নির্বাচনের প্রক্রিয়া রয়েছে। তবে পরিবেশকালীন কোনো সংকট সৃষ্টি হলে কমিটি কিভাবে গঠন করা হবে, সে বিষয়ে তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্ত নেবেন স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা। ’

চট্টগ্রাম উত্তর জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাশেদুল আলম বলেন, তৃণমূলের দাবি, ভোটাভুটিতে নেতৃত্ব নির্বাচিত করার। কাউন্সিলরদের ভোটাভুটিতে নেতৃত্ব নির্বাচিত হলে যোগ্য, ত্যাগী ও মাঠের কর্মীরা নেতৃত্বে উঠে আসবেন।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথী চৌধুরী বলেন, ‘যুবলীগ প্রতিষ্ঠার পর ১৯৭২ সাল থেকে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলায় সাংগঠনিক কার্যক্রম চলছে। ’



সাতদিনের সেরা