kalerkantho

শনিবার । ২ জুলাই ২০২২ । ১৮ আষাঢ় ১৪২৯ । ২ জিলহজ ১৪৪৩

বিভক্তি উসকালেন জেলা নেতারা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

২২ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিভক্তি উসকালেন জেলা নেতারা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভক্তি দীর্ঘদিন ধরেই স্পষ্ট। সেই বিভক্তির আগুনে যেন ‘ঘি’ ঢেলে দিলেন জেলার নেতারা। বিভক্ত দুই পক্ষের আলাদা বর্ধিত সভায় আলাদাভাবে যোগ দিয়ে বিরোধকে আরো তাঁতিয়ে দিলেন তাঁরা!

নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ এখন দুই ভাগে বিভক্ত। এক পক্ষের নেতৃত্ব দিচ্ছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক সফিউল্লাহ মিয়া।

বিজ্ঞাপন

অন্য পক্ষের নেতৃত্বে আছেন যুগ্ম আহ্বায়ক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হানিফ মুন্সী। ওই দুই নেতার পক্ষে ডাকা আলাদা বর্ধিত সভায় জেলার নেতারা দুই ভাগ হয়ে যাওয়ার বিষয়টি ব্যাপক সমালোচনার জন্ম দিয়েছে।

মূলত জেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির বিশেষ সভা থেকে আশুগঞ্জ আওয়ামী লীগকে ঐক্যবদ্ধ করার তাগাদা আসে। ৯ মে হওয়া ওই সভায় দলটির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন ৩০ জুনের মধ্যে আশুগঞ্জে সম্মেলন করার নির্দেশনা দেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা আহ্বায়ক কয়েকজন নেতাকে নিয়ে ১০ মে আলোচনায় বসে ১৬ মে বর্ধিত সভার সময় নির্ধারণ করেন। পরবর্তী সময়ে আহ্বায়ক সফিউল্লাহ মিয়া ১৯ মে আশুগঞ্জ পাওয়ার স্টেশন ট্রেনিং সেন্টার মিলনায়তনে ও যুগ্ম আহ্বায়ক হানিফ মুন্সী আশুগঞ্জ শ্রম কল্যাণ কেন্দ্রে বর্ধিত সভা ডাকেন।

আহ্বায়ক সফিউল্লাহ মিয়ার সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত হন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তাজ মো. ইয়াছিন প্রমুখ। অন্যদিকে হানিফ মুন্সীর সভাপতিত্বে হওয়া সভায় যোগ দেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হেলাল উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী মন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম খোকন প্রমুখ।

সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোকতাদির চৌধুরী এমপি নিজেদের মধ্যে বিরোধ মেটানোর তাগাদা দেন। এ সময় তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে গড়তে হলে সবাইকে সহনশীল ও ধৈর্যশীল হতে হবে। আমি কথা দিয়েছি বলে এই সভায় এসেছি। তার মানে এই নয় যে, যারা অন্যত্র সভা করেছে আমি তাদের বিপক্ষে। কিন্তু আমি এমন আওয়ামী লীগ চাই না, আমি চাই ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ। ’



সাতদিনের সেরা