kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

মুরগি লুটের মামলায় গ্রেপ্তার অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক

জমি দখলে নিতে মামলা, অভিযোগ স্বজনদের

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অবসরপ্রাপ্ত এক স্কুল শিক্ষকের বিরুদ্ধে মুরগির খামারের ১২টি টিন এবং ২০০ মুরগি লুট, ২৫ থেকে ৩০টি গাছ কেটে নেওয়াসহ ভাঙচুর, হামলা, চাঁদাবাজিসহ ১০টি ধারায় মামলা করেন এক ব্যক্তি। শিক্ষকের স্বজনরা বলেন, জমি দখলে নিতে প্রভাবশালী এক ব্যক্তি এই মামলা করেন। শুধু এই মামলা নয়, এর আগে নামে-বেনামে একই রকমের গল্প সাজিয়ে বিভিন্ন থানায় ২৬টি মামলা করা হয়েছে শিক্ষকের পরিবারের বিরুদ্ধে।

পুলিশ গতকাল শুক্রবার সকালে অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক এবং তাঁর ভাতিজাকে মুরগি লুটের মামলায় গ্রেপ্তার করেছে।

বিজ্ঞাপন

তাঁরা হলেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বাগবাড়ী এলাকার কফিল উদ্দিন আহমেদ (৭৯) এবং তাঁর ভাতিজা জহিরুল ইসলাম ওরফে রাজু (৩৭)।

কফিল উদ্দিনের স্বজনরা জানান, বাগবাড়ী এলাকায় তাঁদের পৈতৃক সূত্রে এক একর ৮০ শতাংশ জমি রয়েছে। তাঁদের অভিযোগ, সেই জমি রাজধানীর গুলশান এলাকার ফজলুল করিমের ছেলে ইমতিয়াজ করিম ও তাঁর সহযোগীরা দখল করার চেষ্টা করে আসছেন। সে জন্যই কফিল উদ্দিনসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা করে এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে। কফিল উদ্দিনের মেয়ে কামরুন্নাহার বলেন, ‘আমরা চার বোন ও এক ভাই। বাবা স্কুল শিক্ষক ছিলেন। বয়স বেড়ে যাওয়ায় বেশির ভাগ সময় অসুস্থ থাকেন। ’ তিনি অভিযোগ করেন, ‘আমাদের নিরীহ পেয়ে ইমতিয়াজ করিম ও তাঁর সহযোগীরা আমাদের জমি দখলে নিতে চাইছে। আমার ও আমাদের পরিবারের বিরুদ্ধে মুরগি ও টিন লুট করাসহ বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগে বিভিন্ন থানায় ২৬টি মামলা করেছে। ’ কামরুন্নাহার বলেন, বিভিন্ন থানায় করা ২৬টি মামলার মধ্যে প্রভাবশালী ব্যক্তি ইমতিয়াজ করিম ছয়টি মামলার বাদী। অন্য মামলাগুলোর বাদী ইমতিয়াজের সহযোগীরা। বর্তমানে ১৩টি মামলা চলমান। সর্বশেষ গত সোমবার ইমতিয়াজ করিম টিন ও মুরগি লুটের মামলা করেন।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ইমতিয়াজ করিম আরো কয়েকজনসহ ১১ বছর আগে বাগবাড়ীতে এক একর ৮০ শতাংশ জমি কেনেন। সেখানে সীমানাপ্রাচীর দিয়ে গরু-মুরগির খামার করেন এবং গাছপালা লাগান। ১৫ মে রাতে খামারের দরজা ভাঙচুর করে টিন ও মুরগি লুট করেন আসামিরা। এ বিষয়ে ইমতিয়াজ করিম বলেন, আসামিরা লোক ভালো নয়। খোঁজ নিয়ে দেখেন, তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় অসংখ্য মামলা রয়েছে। জমি দখলের অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, ওসব মিথ্যা কথা।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কাশিমপুর থানার ওসি মাহবুবে খোদা বলেন, ‘আসামিরা মুরগি ও টিন নিয়েছে কি না জানি না। তবে দেয়াল ভেঙেছে এবং বেশ কিছু গাছ কেটে ফেলেছে, এটা সত্য। ’



সাতদিনের সেরা