kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

বাকেরগঞ্জ

নিচে ধান মাড়াই, ওপরে পাঠদান

ধান মাড়াইয়ের বিকট শব্দের কারণে শতাধিক শিক্ষার্থীর পড়াশোনা ব্যাহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল   

১৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নিচে ধান মাড়াই, ওপরে পাঠদান

বাকেরগঞ্জের দওরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

ভবনের নিচতলায় শ্যালো ইঞ্জিনে ধান মাড়াই চলছে। দোতলায় চলছে পাঠদান। বিকট শব্দের কারণে শতাধিক শিক্ষার্থীর পড়াশোনা ব্যাহত হচ্ছে। বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার দওরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গতকাল মঙ্গলবার এই দৃশ্য দেখা গেছে।

বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিদ্যালয়ের জমিদাতা নুর মোহাম্মদ হাওলাদারের বাড়ির প্রবেশপথে বিদ্যালয় ভবন। তাঁর পরিবারের সদস্যরা কয়েক দিন ধরে পাকা ধান ক্ষেত থেকে কেটে বিদ্যালয়ের নিচতলায় স্তূপ করছিলেন। গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সেখানে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত যন্ত্র নিয়ে আসেন। দুপুর ১২টার দিকে ধান মাড়াই শুরু করেন। খবর পেয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ধান মাড়াইয়ের ভিডিও ধারণ করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, বিদ্যালয় ভবনের নিচতলায় ধান মাড়াইয়ের যন্ত্র বসানো রয়েছে। যন্ত্রের পাশে মাড়াই করার জন্য ধান স্তূপ করে রাখা হয়েছে। মাড়াই করা ধান নিচতলায় সংরক্ষণ করা হচ্ছে। একই সঙ্গে খড় মাঠজুড়ে শুকাতে দেওয়া হয়েছে। সামনে রয়েছে বিদ্যালয়ের দ্বিতল ভবন। ধান ও খড়ের ধুলায় শ্রেণিকক্ষে ধুলার স্তূপ জমেছে। বিকট শব্দে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে।

নুর মোহাম্মদ হাওলাদারের ছেলে আবুল হোসেন বলেন, ‘বৃষ্টির কারণে কোথাও ধান মাড়াই করার মতো জায়গা নেই। তাই বিদ্যালয় ভবনে যন্ত্র বসিয়ে মাড়াই করছি। ’

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও দুধল ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মজনু মৃধা বলেন, ‘আমি তাঁদের অনেকবার বাধা দিয়েছি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। তাঁরা উল্টো বলেছেন, এটা তাঁদের দান করা জমি, তাঁরা প্রয়োজনে ব্যবহার করতেই পারেন। ’

প্রধান শিক্ষক সোলায়মান খান বলেন, ‘দুপুরের পর ভবনের নিচতলা থেকে মাড়াই যন্ত্র, ধান আর খড়কুটা সরিয়ে ফেলা হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। ’

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম বলেন, ‘দুপুরের দিকেই মাড়াইয়ের কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ’



সাতদিনের সেরা