kalerkantho

সোমবার । ১৫ আগস্ট ২০২২ । ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৬ মহররম ১৪৪৪

শ্বশুরবাড়ি গিয়ে ১১ মাস ধরে ‘নিখোঁজ’ সেলিম

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৮ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



শ্বশুরবাড়ি গিয়ে ১১ মাস ধরে ‘নিখোঁজ’ সেলিম

সেলিম শিকদার

প্রায় ১১ মাস ধরে ‘নিখোঁজ’ রয়েছেন মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার বালাসুর ইউনিয়নের বাঘাডাঙ্গা গ্রামের সেলিম শিকদার। গত বছরের মে মাসে স্ত্রীর সঙ্গে শ্বশুরবাড়ি গিয়ে আর ফেরেননি তিনি। তাঁর চিন্তায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন বাবা হালেম শিকদার।

এদিকে এ ঘটনায় সেলিমের স্ত্রী রওশন বেগম থানায় কোনো অভিযোগ বা জিডি করেননি।

বিজ্ঞাপন

তাঁর বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন দমন আইনে মামলা করা হয়েছে।

সেলিমের ছোট ভাই আলতাফ শিকদার জানান, ২০১২ সালে মাদারীপুরের শিবচরের রওশন বেগমের সঙ্গে তাঁর ভাই সেলিমের প্রেমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাঁরা ঢাকার আশুলিয়ায় বসবাস শুরু করেন। তাঁদের ঘরে একটি কন্যা সন্তানও রয়েছে। সাংসারিক কারণে দুজনের মাঝেমধ্যেই ঝগড়াঝাটি লেগে থাকত। এ নিয়ে পারিবারিকভাবে আপস-মীমাংসাও হয়েছে। রওশনের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় গত বছরের মে মাসে দ্বিতীয় বিয়ে করেন সেলিম। পরে এ নিয়ে সেলিমদের গ্রামের বাড়ি বাঘাডাঙ্গায় পারিবারিক আপস-মীমাংসা হয়। মিল-মহব্বত বাড়াতে উভয় পক্ষের পরিবারের সিদ্ধান্তে সেলিমকে স্ত্রীসহ শ্বশুরবাড়িতে পাঠানো হয়। সেখানে থাকা অবস্থায় সেলিমের শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাঁর কাছ থেকে জোর করে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নেন। এর কিছুদিন পর জুন মাসের মাঝামাঝি নিখোঁজ হন সেলিম। এর পর থেকে সেলিমের আর কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

আলতাফ শিকদার বলেন, ‘দীর্ঘদিন এভাবে আমার ভাই নিখোঁজ হয়ে থাকতে পারেন না। আমাদের ধারণা, তাঁকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন হত্যা করে লাশ গুম করেছে। ’ এ ব্যাপারে সেলিম শিকদারের প্রথম স্ত্রী রওশন বেগম এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন, তাঁর স্বামী নিখোঁজ নয়। আত্মগোপন করে আছেন। তাই তিনি কোনো সাধারণ ডায়েরি করেননি।

সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে রওশন বলেন, স্বামীকে ফেরত পেলে সেটি ফিরিয়ে দেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা