kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ আগস্ট ২০২২ । ৪ ভাদ্র ১৪২৯ । ২০ মহররম ১৪৪৪

বাজেটে শ্রমিক সংগঠনগুলোর সাত দফা প্রস্তাব

শ্রমিকের আবাসন ও কল্যাণ তহবিল দাবি

শ্রীলঙ্কা-শ্রীলঙ্কা বলা হচ্ছে, আসলে কিচ্ছুই হবে না। যদি না শ্রীলঙ্কাকে মালা দিয়ে এখানে (বাংলাদেশে) বয়ে আনা হয়, সেটা অন্য বিষয়। তবে সেটা বাংলার মানুষের স্বার্থে হবে না। কেউ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা তৈরির চেষ্টা করবেন না -পরিকল্পনামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



স্বাস্থ্য-শিক্ষা বাজেটের মতো সুনির্দিষ্টভাবে শ্রমিক বাজেট বরাদ্দ ঘোষণা, শ্রমিকদের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালুসহ সাত দফা প্রস্তাব তুলে ধরেছে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন। তারা বর্তমানে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও শ্রমিকদের স্বার্থ বিবেচনায় বাজেটে পৃথক বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলছে।

গতকাল শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশন আয়োজিত ‘প্রসঙ্গ জাতীয় বাজেট; শ্রমিকদের জন্য কেমন বাজেট চাই’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় এসব প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। সংগঠনের পক্ষে প্রস্তাবগুলো তুলে ধরেন সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান ইসমাইল।

বিজ্ঞাপন

তাদের অন্য প্রস্তাবগুলো হলো : প্রত্যেক শ্রমিকের জন্য স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি কিস্তিতে স্থায়ীভাবে আবাসনের ব্যবস্থা করা, জরুরি স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা তহবিল গঠন, কর্মস্থলে শ্রমিকদের জীবন নিরাপত্তার জন্য স্বাস্থ্যঝুঁকি ও জীবন বীমা স্কিমের আওতায় ভবিষ্যৎ সুরক্ষা নিশ্চিতকরণ,  সংসদ সদস্যদের নিয়ে শ্রমিক ককাস গঠন করা এবং শ্রমিকদের জন্য সর্বজনীন কল্যাণ তহবিল গঠন ও সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের আওতায় নতুন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা।

অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘এখানে আলোচনায় শ্রমিকদের রেশনিংয়ের কথা উঠে এসেছে, তবে আমি মনে করি রেশনিং বিরাট একটা ব্যবস্থাপনার বিষয়। আমাদের দেশে যত বেশি প্রসার, তত বেশি লিকেজ, এটা আমরা স্বীকার করি। এই যে প্রণোদনা হিসেবে সরকার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছিল, সেটা পদে পদে, চুইয়ে চুইয়ে শেষ পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছেছে। রেশনিংয়ে একটা কল্যাণ আছে, আমি মানি। কিন্তু এটাকে প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছানোর ব্যাপারে আমার সংশয় আছে। আরো সহজ উপায় আমার মাথায় আছে। ’

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘পুরো বিশ্বে পুঁজিবাদের জয়জয়কার। সেখানে বাংলাদেশের মতো রাষ্ট্রের পক্ষে পুঁজিবাদের সঙ্গে পাল্লা দেওয়া সহজ কাজ নয়।   আমি ব্যক্তিগতভাবে বিশ্বাস করি; শ্রমিকদের পুরো পাওনা দেওয়া হচ্ছে না। তবুও যদি শ্রমিকদের প্রাপ্যটা যাতে আরেকটু ন্যায্য ও হকভিত্তিক করা যায় সেটা আমরা চেষ্টা করব। ’

বাংলাদেশের অবস্থা শ্রীলঙ্কার মতো হবে—এমন গুঞ্জনের পরিপ্রেক্ষিতে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, শ্রীলঙ্কা-শ্রীলঙ্কা বলা হচ্ছে, কিচ্ছুই হবে না। যদি না শ্রীলঙ্কাকে মালা দিয়ে এখানে (বাংলাদেশে) বয়ে আনা হয়। সেটা অন্য বিষয়। তবে সেটা বাংলার মানুষের স্বার্থে হবে না। কেউ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা তৈরির চেষ্টা করবেন না। রাজনৈতিক অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হলে আপনাদের (বিরোধিতাকারীদের), আমাদের সবার ক্ষতি হবে।

গোলটেবিল বৈঠকে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, ‘আমি মনে করি এই বাজেটে শ্রমিকদের জন্য একটি আলাদা সেকশন থাকা দরকার, যেখানে তাঁরা পরিষ্কার দেখতে পারবেন তাঁরা বাজেট থেকে কী পেলেন। পাশাপাশি তাঁদের জন্য ন্যূনতম মজুরি বাস্তবায়ন, শ্রমিক ডাটাবেইস, পাটকলের বাকেয়া পাওনাদি মেটানো জরুরি হয়ে পড়েছে। আশা করছি তার দিকনির্দেশনা এই বাজেটে থাকবে। ’

তিনি আরো বলেন, ‘সামনে আমরা এলডিসি থেকে গ্র্যাজুয়েশন করব সুতরাং সে জায়গায় শ্রম দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি কলকারখানার উৎপাদন বাড়াতে হবে। সে বিষয়গুলোকে মাথায় রেখে শ্রমিকের দক্ষতার উন্নয়ন করতে হবে। মাথায় রাখতে হবে শুধু কারখানার উন্নয়ন করলেই শ্রমিকের উন্নয়ন হবে না। ’

আলোচনায় অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন বিকেএমইএ নির্বাহী সভাপতি মো. হাতেম, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন সংঘের সাধারণ সম্পাদক আশিকুল আলম পটল, জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি বাহরানে সুলতান বাহার, বাংলাদেশ গার্মেন্ট শ্রমিক মুক্তি আন্দোলনের সভাপতি শবনব হাফিজ, ডিইউজের সাবেক সভাপতি আবু জাফর সূর্য প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা