kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জুন ২০২২ । ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৯ জিলকদ ১৪৪৩

পুরনো সেতু বন্ধ, সংকেত নেই

খাদে গাড়ি, দুই শিক্ষার্থী নিহত

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি   

১৫ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পুরাবাজারের কাছে রজতরেখা নদীর ওপর পুরনো বেইলি সেতুটি পাশে স্থানান্তর করা হয়েছে। আগের সেতুর মুখে ইট-পাথর দিয়ে রাখা হয়েছে। তবে নতুন সেতুর কোনো নির্দেশনা বা সংকেত বোর্ড রাখা হয়নি। দিনের বেলায় দূর থেকে বোঝা গেলেও রাতে দুর্ঘটনার শঙ্কা ছিল আগে থেকেই।

বিজ্ঞাপন

   

শঙ্কাই সত্যি হলো গত শুক্রবার রাতে। নতুন সেতুর অবস্থান বুঝতে না পেরে একটি প্রাইভেট কার পড়ে যায় আগের সেতুর পাশের খাদে। এতে দুই তরুণ নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে তাদের আরেক বন্ধু জাহিদ হাসান (১৬)।

নিহতরা হলো জিসান (১৯) ও ফাহিম (১৭)। জিসান মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার উত্তর চরমসুরা এলাকার মো. মানিক মিয়ার ছেলে। সে এবার মুন্সীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাস করেছে বলে জানা গেছে। ফাহিম একই এলাকার সরবতুল্লার ছেলে। সে একই বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার উত্তর চরমসুরা গ্রামের মানিক মিয়ার জামাতা ঢাকা থেকে তাঁর প্রাইভেট কার নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে বেড়াতে আসেন। শুক্রবার রাতে ভগ্নিপতির গাড়িতে দুই বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে ঘুরতে বের হন জিসান। এক পর্যায়ে ওই তিন বন্ধু টঙ্গিবাড়ী উপজেলার পুরাবাজার হয়ে দীঘিরপাড় বাজার এলাকায় যাওয়ার পথে পুরনো সেতুর গোড়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে প্রাইভেট কারটি খাদে পড়ে যায়। পরে তাদের উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে জিসান ও ফাহিমকে মৃত ঘোষণা করেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ দুর্ঘটনায় আহত জাহিদ হাসান মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

আহত জাহিদ হাসান জানায়, রাতে তারা গাড়ি নিয়ে ঘুরতে বের হয়েছিল। জিসান গাড়ি চালাচ্ছিল। পুরাবাজারের কাছাকাছি এলে সামনে কোনো সেতু দেখা যাচ্ছিল না। কোনো সতর্কতামূলক সাইনবোর্ডও চোখে পড়েনি। সামলে এগোলে গাড়িটি পাশের খাদে পড়ে যায়। এরপর আর কিছু তার মনে নেই।

নিহত জিসানের বোন রূপা আক্তার বলেন, ‘ছয় মাস আগে ড্রাইভিং কোর্স করেছিল জিসান। ও খুব ভালো ড্রাইভিং করত। ঢাকা শহরে প্রায়ই গাড়ি নিয়ে ঘুরতে বের হতো। এর আগে কখনো কোনো দুর্ঘটনায় পড়েনি জিসান। সেতুটির সামনে সতর্কতামূলক কোনো সাইনবোর্ড না থাকায়ই হয়তো তাকে প্রাণ দিতে হলো। ’

জিসানের মামা চান মিঞা জানান, এর আগেও সতর্কতামূলক সাইনবোর্ড না থাকায় ওই সেতুতে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু এর পরেও কর্তৃপক্ষ কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।



সাতদিনের সেরা