kalerkantho

শনিবার । ১৩ আগস্ট ২০২২ । ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৪ মহররম ১৪৪৪  

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

কর্মঘণ্টা পূর্ণ হওয়ায় বিশ্রামে চালক, দেরিতে ছাড়ল ট্রেন

চট্টগ্রামেও রানিং স্টাফের সংকট, পাঁচ ট্রেনের যাত্রা বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি   

২৭ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আট ঘণ্টা কর্মসময় পূর্ণ হওয়ার পর চালকরা বিশ্রাম চাওয়ায় গতকাল বুধবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার আমনুরা জংশন স্টেশন থেকে যাত্রীবোঝাই দুটি ট্রেন বিলম্বে গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। চট্টগ্রামে রানিং স্টাফ (চালক, সহকারী, গার্ড ও টিটি) সংকটের কারণে গতকাল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনটি শাটল ট্রেন ও চট্টগ্রাম-নাজিরহাটের দুটি ট্রেনের যাত্রা বাতিল হয়েছে। চট্টগ্রাম থেকে বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী পণ্যবাহী (কনটেইনার) ট্রেনগুলোতেও রানিং স্টাফ সংকট দেখা দিয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান।

এ ছাড়া মাইলেজ বাতিল বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের জারি করা প্রজ্ঞাপন ৩০ জানুয়ারির মধ্যে বাতিলের দাবিতে বিকেলে চট্টগ্রাম রেলস্টেশনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে রানিং স্টাফ ঐক্য পরিষদ।

বিজ্ঞাপন

এক ঘণ্টার এই কর্মসূচি পালনকালে স্টেশনের প্ল্যাটফরমসহ বিভিন্ন পয়েন্টে মিছিল করেন রানিং স্টাফরা।

আমনুরা জংশন মাস্টার হাসিবুল হাসান বলেন, গতকাল সকাল ৬টা ২০ মিনিটে শিডিউল মোতাবেক জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার রহনপুর স্টেশন থেকে খুলনার উদ্দেশে ছেড়ে আসে ১৬ ডাউন মহানন্দা এক্সপ্রেস। ট্রেনটি আমনুরা পৌঁছার পর ৭টা ৬ মিনিটে আবার খুলনার পথে রাজশাহীর দিকে রওনা হওয়ার সূচি নির্ধারিত। কিন্তু আমনুরা আসার পর চালক তাঁর কর্মসময় পূর্ণ হয়েছে জানিয়ে ট্রেন নিয়ে যেতে অস্বীকার করে বিশ্রাম চান। এতে ট্রেনটি ৪০ মিনিট দেরিতে গন্তব্যের দিকে রওনা দেয়। চালক জানান, তিনি কর্মসময় পূর্ণ হওয়ার পর ট্রেন চালাতে অপারগতার বিষয়টি লিখিতভাবে (মেমো) রহনপুর স্টেশনে দিয়ে এসেছেন।

একই ঘটনা ঘটে দুপুর ১টায় রহনপুর ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী ৫৮ ডাউন কমিউটার ট্রেনের ক্ষেত্রে। ট্রেনটি আমনুরা আসার পর চালক লিখিতভাবে মেমো দিয়ে বিশ্রাম চেয়ে ট্রেন নিয়ে যেতে অস্বীকার করেন। ট্রেনটির ১টা ৪০ মিনিটে আমনুরা ছেড়ে গন্তব্যের দিকে রওনা হওয়ার কথা। পরে ট্রেনটি ৪৭ মিনিট দেরিতে আমনুরা ছেড়ে যায়। উভয় ক্ষেত্রেই এমন ঘটনায় স্টেশনে যাত্রীদের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়। পরে অবশ্য একই চালকরা যাত্রীদের অনুরোধে ট্রেনগুলো চালিয়ে নিয়ে যান।

কিন্তু চালকরা হঠাৎ কেন এমন করলেন, এ ব্যাপারে জংশন মাস্টার কোনো স্পষ্ট ব্যাখ্যা দিতে পারেননি। তিনি বলেন, তিনি শুনেছেন রাজশাহী থেকেও কয়েকটি ট্রেনের ক্ষেত্রে একই ঘটনা ঘটেছে। এমন ঘটনায় পুরো ট্রেন চলাচলে শিডিউল বিপর্যয় ঘটবে কি না—এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আজকের (গতকাল) বিলম্বের বিষয়টি হয়তো মানিয়ে নেওয়া যাবে। ’

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী মাস্টার ওবাইদুল্লাহও দুপুরে আমনুরা স্টেশনে ট্রেন বিলম্বে ছাড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। কিন্তু তিনিও পরিষ্কার কোনো কারণ বলতে পারেননি। আমনুরা জংশন রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) ইসলাম আলী বলেন, সকালের ট্রেন ৪৫ মিনিট ও দুপুরের ট্রেন আউটারসহ এক ঘণ্টা ১০ মিনিট দেরিতে ছেড়েছে। ঘটনাটি তাঁরা তাঁদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছেন।



সাতদিনের সেরা