kalerkantho

শুক্রবার ।  ২৭ মে ২০২২ । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৫ শাওয়াল ১৪৪

নাসির-তামিমার বিয়ে

অভিযোগ গঠন বিষয়ে আদেশ ৯ ফেব্রুয়ারি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভিযোগ গঠন বিষয়ে আদেশ ৯ ফেব্রুয়ারি

ডিভোর্স না হওয়া সত্ত্বেও অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করার অভিযোগে করা মামলায় ক্রিকেটার নাসির হোসেন এবং স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। গতকাল সোমবার ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেনের আদালত আদেশের জন্য এ দিন ধার্য করেন।   মামলার অন্য আসামি হলেন তামিমার মা সুমি আক্তার।

বিজ্ঞাপন

এদিন নাসির-তামিমাসহ তিন আসামি আদালতে উপস্থিত হন। তাঁদের নির্দোষ দাবি করে অব্যাহতির আবেদন করেন আইনজীবী কাজী নজিবুল্লাহ হিরু। তিনি বলেন, ‘২০১৭ সালের ২২ এপ্রিল তামিমার সঙ্গে মামলার বাদী রাকিবের তালাক কার্যকর হয়েছে। তার চার বছর পর নাসির তামিমাকে বিয়ে করেন। সুতরাং নাসিরের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ টেকে না। আর তামিমা আইন মেনে রাকিবকে যথাযথভাবে তালাক দিয়েছেন। তালাকের নোটিশ দেওয়ার দায়িত্ব কাজি অফিসের। তামিমার মায়ের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগও সঠিক নয়। রাকিবকে তামিমা তালাক দিয়েছেন, এটা তাঁদের ব্যাপার। এখানে সুমি আক্তারের কোনো ভূমিকা নেই। তাই মামলার দায় থেকে অব্যাহতির আবেদন জানাচ্ছি। ’

অন্যদিকে বাদীপক্ষের আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, ‘২০১৭ সালে রাকিব ও তামিমার মধ্যে তালাক কার্যকর করার কথা সঠিক নয়। তামিমা ২০১৮ সালের পাসপোর্টে স্বামীর নাম হিসেবে রাকিবের নাম উল্লেখ করেন। জালিয়াতির আশ্রয় নিয়েছেন আসামিরা। এ বিষয়ে তামিমার মা সব জানতেন। ’

গত বছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি রাকিব হাসান বাদী হয়ে আদালতে এ মামলা করেন। এরপর গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক শেখ মো. মিজানুর রহমান তিনজনকে দোষী উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, রাকিবকে তালাক দেননি তামিমা। আইনগতভাবে রাকিব তালাকের কোনো নোটিশও পাননি। তামিমা উল্টো জালিয়াতি করে তালাকের নোটিশ তৈরি করে তা বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন।



সাতদিনের সেরা