kalerkantho

শুক্রবার ।  ২৭ মে ২০২২ । ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২৫ শাওয়াল ১৪৪

বিধি-নিষেধের প্রথম দিনে সচিবালয়ে শতভাগ কর্মী

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিধি-নিষেধের প্রথম দিনে সচিবালয়ে শতভাগ কর্মী

করোনার বিস্তার ঠেকাতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে গত রবিবার জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, গতকাল সোমবার থেকে অর্ধেক কর্মী নিয়ে চলবে সরকারি, আধাসরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু গতকাল খোদ সচিবালয়েই এ নির্দেশনার প্রতিফলন ছিল না। প্রায় সব কর্মকর্তাই অফিস করেছেন।

এদিকে সচিবালয়ে গতকাল থেকে দর্শনার্থীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ২৪ জানুয়ারি থেকে পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

জানা গেছে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি হওয়া নতুন নির্দেশনা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলেও কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে গতকাল। ফলে সবাই অফিসে চলে আসেন। ওই নির্দেশনা আজ মঙ্গলবার থেকে কার্যকর করা হবে বলে একাধিক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোহসীন গতকাল বিকেলে বলেন, ‘আমরা অর্ধেক জনবল নিয়ে কাজ করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছি। প্রত্যেক শাখাপ্রধান অর্ধেক জনবল দিয়ে কিভাবে কাজ করবেন, সেটা নির্ধারণ করবেন। ’

গতকাল দুপুরে স্বরাষ্ট্র, খাদ্য, ভূমি, জনপ্রশাসন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ, কৃষি মন্ত্রণালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, সব দপ্তরেই আগের মতো কাজ চলছে। জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, তাঁরা তখন পর্যন্ত (বিকেল ৩টা) কোনো নির্দেশনা পাননি।

অন্যদিকে গতকাল জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন, এক সপ্তাহ পর করোনাভাইরাস (কভিড-১৯) সংক্রমণ পরিস্থিতি দেখে চলমান বিধি-নিষেধের বিষয়ে পরবর্তী নির্দেশনা দেওয়া হবে। প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমাদের উদ্দেশ্য সবাই মাস্ক পরুক। এই সময়টা আমরা অতিক্রম করতে চাই। আমরা চাই, এই তৃতীয় ঢেউ থেকে যত তাড়াতাড়ি উত্তরণ করতে পারি। সে জন্য সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে তৃতীয় ঢেউ মোকাবেলা করতে হবে। ’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এখন যে ভেরিয়েন্টটা দেখছি ওমিক্রন, এটা থেকে আক্রান্তরা সেরে উঠতে অল্প সময় নিচ্ছে। রিকভারি রেট কিন্তু খুবই ভালো। ৮৫ শতাংশের বেশিসংখ্যক আক্রান্ত মানুষ ঘরে থেকে ট্রিটমেন্ট নিতে পারছে এবং সেরে উঠছে। আগামী এক সপ্তাহ পর দেখব এটা কী পর্যায়ে আছে, সেই অনুযায়ী আমরা পরবর্তী নির্দেশনা দেব। ’

গণপরিবহন বিধি-নিষেধ মানছে না বলে জানানো হলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের দেওয়া বিধি-নিষেধ সবাইকে মানতে হবে। ইউরোপ সংক্রমণের ক্ষেত্রে তাদের পিক সময় পার করেছে। আমাদের একটু পরে শুরু হয়েছে। এ জন্য আমাদের একটু পরে সেটা (চূড়ান্ত সংক্রমণ) হতে পারে। সে ক্ষেত্রে আমরা চাইব, নির্দেশনাগুলো সবাই যাতে মেনে চলে। পরিবহন সেক্টরে যাঁরা রয়েছেন, তাঁদেরও সহযোগিতা করতে হবে। ’

ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘মানুষকে এরই মধ্যে জানানো হয়েছে যে এটা (করোনা সংক্রমণ) বেড়ে যাচ্ছে। মানুষ সচেতন হওয়া শুরু করেছে। সবাইকে জানিয়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করব। তখন বলার একটা যৌক্তিকতা থাকবে যে আমরা সতর্ক করে দিয়েছিলাম। ’



সাতদিনের সেরা