kalerkantho

রবিবার ।  ২২ মে ২০২২ । ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২০ শাওয়াল ১৪৪৩  

উত্তীর্ণ হয়েও জমি না থাকায় পুলিশে চাকরি হচ্ছে না শুভর

মোবারক আজাদ   

২১ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



একবুক আশা নিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের সর্বশেষ কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেন শুভ আহমেদ। এতে যাচাই-বাছাই, শারীরিক যোগ্যতা, লিখিত-মৌখিক পরীক্ষা এবং দুই দফা মেডিক্যালসহ সব পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তিনি। এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহীর সারদায় প্রশিক্ষণে যেতে ঢাকার মিল ব্যারাক পর্যন্ত যান শুভ। কিন্তু তিনি বা তাঁর পরিবার ভূমিহীন থাকায় প্রশিক্ষণে যাওয়ার সুযোগ হয়নি তাঁর।

বিজ্ঞাপন

নিরাশ হয়ে বাড়ি ফিরতে হয় তাঁকে। এতে দিশাহারা হয়ে পড়েছে শুভ ও তাঁর পরিবার।

শুভ আহমেদ রাজধানীর আরকে চৌধুরী কলেজের সম্মান (অনার্স) প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। জমি না থাকায় শুভর মা-বাবা প্রায় ১৮ বছর ধরে জুরাইনে তাঁর দুলাভাইয়ের বাড়িতে থাকেন। বাবা বৃদ্ধ বাবুল মিয়া ভ্যানচালক। বাবার আয়ে তাঁদের সংসার চলে।

চাকরি না হওয়ার খবরে ঢাকা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে যোগাযোগ করেন শুভ ও তাঁর বাবা। তাঁদের জানানো হয়, সংশ্লিষ্ট জেলায় নিজেদের জমি না থাকলে চাকরি দেওয়ার বিধান নেই। তবে ভূমিহীনের সনদ আনতে পারলে চাকরির বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

পরে ভূমিহীন সনদের জন্য গত ২৯ ডিসেম্বর শুভর বাবার পৈতৃক নিবাস নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ সহকারী কমিশনার (এসি ল্যান্ড) অফিসে যোগাযোগ করেন শুভ ও তাঁর বাবা। কিন্তু অর্ধমাস পার হলেও সনদ পাননি তাঁরা। এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলাম জানান, ভূমিহীনের সনদ দেওয়ার ক্ষমতা এসি ল্যান্ডের নেই।

এরপর ৯ জানুয়ারি ভূমিহীন সনদের জন্য ঢাকা কোতোয়ালি ভূমি সার্কেলের সহকারী ভূমি কমিশনার বরাবর আবেদন করেন শুভ। সেখান থেকেও সনদ পাননি। এ বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবেরা তাবাসসুম ওয়াহিদ কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘কোনো নাগরিককে ভূমিহীন সার্টিফিকেট দেওয়ার এখতিয়ার আমার নেই। ’ এদিকে শুভ চাকরি পেতে এরই মধ্যে পুলিশের মহাপরিদর্শক, উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি ঢাকা রেঞ্জ) ও ঢাকা জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছেন। আশায় আছেন, তাঁরা বিষয়টি বিবেচনা করবেন।



সাতদিনের সেরা