kalerkantho

বৃহস্পতিবার ।  ১৯ মে ২০২২ । ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৭ শাওয়াল ১৪৪৩  

সামরিক ও অসামরিক প্রশাসনকে একসঙ্গে কাজ করার তাগিদ

ডিসি সম্মেলনে সেনাপ্রধান

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সামরিক ও অসামরিক প্রশাসনকে একসঙ্গে কাজ করার তাগিদ দিয়েছেন সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। গতকাল বৃহস্পতিবার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জেলা প্রশাসক সম্মেলনে তিনি এই তাগিদ দেন।

জেলা প্রশাসকদের সঙ্গে অধিবেশন শেষে শফিউদ্দিন আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘বাংলাদেশ সেনাবাহিনী তাদের প্রচলিত যেসব দায়িত্ব পালন করে, তার জন্য অসামরিক প্রশাসনের সহায়তা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আমি নিজেই এখানে এসেছি, কারণ আমি এটিকে অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়েছি।

বিজ্ঞাপন

আমরা সোনার বাংলা গড়ার যে অভীষ্ট লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছি, সেখানে সামরিক প্রশাসনের সঙ্গে অসামরিক প্রশাসন একসঙ্গে কাজ না করলে আমরা সেই লক্ষ্যে পৌঁছতে পারব না। ’

সেনাপ্রধান আরো বলেন, ‘বর্তমানে সামরিক-অসামরিক প্রশাসনের মধ্যে আমাদের অত্যন্ত সুসম্পর্ক রয়েছে। আমরা এটিকে ক্যাপিটালাইজ করে আরো এগিয়ে যেতে চাই। ডিসিদের কাছ থেকে কোনো প্রস্তাব এসেছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘স্পেসিফিক প্রস্তাব বলতে সে রকম কোনো প্রস্তাব নেই। কিন্তু আমাদের যেসব সিভিল-মিলিটারি রিলেশন বাড়ানোর ক্ষেত্র আছে, সেগুলো আমরা আলোচনা করেছি। কিছু কিছু প্রস্তাব আছে যেগুলো এখনই বললে প্রি-ম্যাচিউরড হয়ে যাবে। আমরা আরো একটু আলোচনা করে দেখব, তারপর ওটাকে বাস্তবায়ন করা যাবে। ’

কোন কোন বিষয়ে গুরুত্ব দিয়েছেন জানতে চাইলে সেনাপ্রধান বলেন, ‘আমার তরফ থেকে যেকোনো কাজ একসঙ্গে করার জন্য পরিবেশ খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ভালো পরিবেশের জন্য ভালো সম্পর্ক গুরুত্বপূর্ণ। আমি আমাদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ানোর বিষয়টি ফোকাস করেছি। যত যোগাযোগ হবে, তত দূরত্ব কমবে। তত আমাদের কাজ করার সুবিধা বাড়বে। ’

নির্বাচনের মাঠে দায়িত্ব পালনসংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে সেনাপ্রধান বলেন, ‘আমাদের  প্রথম দায়িত্ব হলো দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা। দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার পাশাপাশি ইন-এইড টু সিভিল পাওয়ারে আমরা নেশন বিল্ডিং অ্যাক্টিভিটিজ করি, ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের কাজ করি। আমরা ল এনফোর্সমেন্টকে সহায়তা করি। ’

শফিউদ্দিন বলেন, ‘আমরা পার্বত্য চট্টগ্রামে একটা বিশেষ ধরনের দায়িত্ব পালন করছি। আমরা এফডিএমএন ক্যাম্পে কক্সবাজারে দায়িত্ব পালন করছি। আমরা সংবিধানের মধ্যে থেকে বিদেশেও দায়িত্ব পালন করছি। কুয়েতে সেনাবাহিনীর অনেক সেনা সদস্য কাজ করে। দেশের জন্য অনেক বিদেশি মুদ্রা নিয়ে আসছে। বিশ্বে এক নম্বর শান্তিরক্ষী পাঠানো দেশ হিসেবে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্বীকৃত। ’



সাতদিনের সেরা