kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

ভুয়া কয়েন বিক্রির অভিযোগে পাঁচজন গ্রেপ্তার

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে চক্রের তিন দালাল ও এক রসায়নবিদকে গ্রেপ্তার করে ডিবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৬ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর গুলিস্তান থেকে ৮০ টাকায় কেনা হয় তামার তৈরি কয়েন। সেসব কয়েন প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ দাবি করে কোটি কোটি টাকায় বিক্রি করে আসছিল একটি চক্র। এসব ভুয়া কয়েনের দরদাম হতো পাঁচতারা হোটেলে। চক্রের সদস্যরা নিজেদের লোকদেরই বিক্রেতা, রসায়নবিদ ও দালাল সাজিয়ে এই পরিবেশ তৈরি করতেন।

বিজ্ঞাপন

সম্প্রতি রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই চক্রের তিন দালাল ও এক রসায়নবিদকে গ্রেপ্তার করে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। এ সময় ৪২টি ধাতব মুদ্রা উদ্ধার করা হয়। পরে তাঁদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঢাকার সাভারে অভিযান চালিয়ে আরেক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁর দেওয়া তথ্যে মানিকগঞ্জের একটি বাঁশঝাড় থেকে উদ্ধার করা হয় ১১ লাখ টাকা।

প্রতারণার ধরন প্রসঙ্গে ডিবি পুলিশ জানায়, কথিত মহামূল্যবান কয়েকটি কয়েন ক্রেতার সামনে স্কচটেপে মোড়ানো প্যাকেট থেকে খোলা হয়। কার্বন কাগজের আরেকটি প্রলেপ ছিঁড়ে কয়েন বের করে ম্যাগনিফাইং গ্লাস দিয়ে পরীক্ষা করেন কথিত রসায়নবিদ। সাজানো পরীক্ষায় রসায়নবিদ চার ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করেন। পরীক্ষার পর জানান এর মধ্যে দুটি কয়েন আসল। ক্রেতা, বিক্রেতা ও দালালের উপস্থিতিতে দুটি কয়েনের দাম নির্ধারণ করা হয় পাঁচ কোটি টাকা। কথিত ৪০০ বছরের পুরনো দুটি কয়েনের দামে ক্রেতা সন্তুষ্ট হয়ে ৪০ লাখ টাকা অগ্রিম দেওয়ার পর বাকি টাকা পরিশোধের তারিখ ঠিক করে বিদায় নেন। পরে নির্দিষ্ট তারিখে বাকি টাকা দিয়ে কয়েন নিতে গিয়েই ঘটে বিপত্তি। খোঁজ নেই দালাল বা বিক্রেতার। এরপর বাধ্য হয়ে ক্রেতা পুলিশকে জানান।

প্রতারিত হওয়া এক ক্রেতা বলেন, ‘কয়েন বিক্রির কথা বলে আমাকে নিয়ে গেছে। তখন আমার কাছে বিক্রির কথা বলে স্ট্যাম্প করে ৪০ লাখ টাকা নিয়েছে। এই প্রতারকরা এমন পরিবেশ তৈরি করে যে মানুষের তখন আর বিবেক-বুদ্ধি কাজ করে না। ’



সাতদিনের সেরা