kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ মাঘ ১৪২৮। ২০ জানুয়ারি ২০২২। ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

করোনাবিধি মেনে কাল বসছে সংসদের ১৬তম অধিবেশন

রাষ্ট্রপতির ভাষণ প্রথম দিন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



একাদশ জাতীয় সংসদের ১৬তম অধিবেশন বসছে আগামীকাল রবিবার বিকেল ৪টায়। করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অধিবেশন পরিচালনা করা হবে। অধিবেশনের প্রথম দিন ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। এরপর রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করা হবে এবং তা নিয়ে আলোচনা করবেন সরকার ও বিরোধীদলীয় সদস্যরা। এ ছাড়া অধিবেশনে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিল পাসের সম্ভাবনা রয়েছে বলে সংসদ সচিবালয়ের আইন শাখা থেকে জানানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, সংসদের ১৬তম অধিবেশন হবে নতুন বছরের প্রথম অধিবেশন। রেওয়াজ অনুযায়ী বছরের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি ভাষণ দিয়ে থাকেন। যেখানে সরকারের সফলতা ও আগামী কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। এরপর রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করেন চিফ হুইপ। এরপর তা নিয়ে আলোচনা করেন সংসদ সদস্যরা। যেখানে সরকারি সফলতা-ব্যর্থতা ছাড়াও জনগুরুত্বপূর্ণ নানান ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনা শেষে সংসদ সদস্যদের ভোটে ওই প্রস্তাব গ্রহণ করা হয়। এ ছাড়া প্রথম অধিবেশনে বিল পাস, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রীদের প্রশ্নোত্তরসহ অন্যান্য কার্যক্রম চলে।

জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই আলম চৌধুরী কালের কণ্ঠকে জানান, রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত জাতীয় সংসদ। করোনাকালের অন্যান্য অধিবেশনের মতো এবারও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংসদের বৈঠক বসবে। অধিবেশনকক্ষে প্রবেশের জন্য সবাইকে করোনা নেগেটিভ সনদ নিতে হবে। নির্ধারিত দূরত্ব বজায় রেখে বসবেন সংসদ সদস্যরা। অধিবেশনে দর্শনার্থীদের প্রবেশ বন্ধ থাকবে। এরই মধ্যে সংসদ অধিবেশন চলাকালে দায়িত্বরত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের করোনাভাইরাস পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া হয়েছে।

বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মসিউর রহমান রাঙ্গা বলেন, বরাবরের মতো প্রকৃত বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করবেন জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা। তাঁরা জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুগুলো সংসদে তুলে ধরতে সচেষ্ট থাকবেন। সরকারের ভালো কাজের প্রশংসার পাশাপাশি ব্যর্থতাও তুলে ধরবেন।

অবশ্য বিএনপিদলীয় সংসদ সদস্য মোশাররফ হোসেন মনে করেন, সংসদে সরকারের সফলতা নিয়ে আলোচনার কিছু নেই। রাষ্ট্রপতি যতই সরকারের তথাকথিত ফিরিস্তি তুলে ধরুন না কেন, আলোচনা হবে ভোটাধিকার, মানবাধিকার ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের বিষয়ে। জনজীবনে সীমাহীন দুর্ভোগ নিয়ে সংসদে আলোচনার জন্য স্পিকার পর্যাপ্ত সময় দেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, আগামী অধিবেশনে আলোচনার প্রধান ইস্যু হবে নির্বাচন কমিশন গঠন ও নির্বাচনকালীন সরকার গঠন। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে চলমান সংলাপে অংশ নিয়ে কয়েকটি দল এ বিষয়ে কথা বলেছে, প্রস্তাব জমা দিয়েছে। বিএনপিসহ অন্যরা এই ইস্যুতে সংসদ উত্তপ্ত করতে পারে।



সাতদিনের সেরা