kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সমাবর্তনে শিক্ষামন্ত্রী

সময় এসেছে শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর

বাংলাদেশ একটি অপার সম্ভাবনার দেশ : কৈলাস সত্যার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক ও সাভার প্রতিনিধি   

১০ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সময় এসেছে শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নবম সমাবর্তনে গতকাল শিক্ষার্থীদের হাতে সনদ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। ছবি : কালের কণ্ঠ

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা পরীক্ষানির্ভর এবং সনদনির্ভর হয়ে আছে। কিন্তু সনদই সব নয়। যদি তাই হতো তাহলে দেশে এত সনদধারী বেকার থাকত না। সময় এসেছে আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর।

বিজ্ঞাপন

আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। একেবারে প্রাথমিক পর্যায় থেকে উচ্চশিক্ষা পর্যন্ত শিক্ষাব্যবস্থায় পরিবর্তন আনার কাজ চলছে। ’

গতকাল রবিবার ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির নবম সমাবর্তনে রাষ্ট্রপতির প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ঢাকার আশুলিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাসে এই সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়।

এবারের সমাবর্তনে স্প্রিং ২০১৯ থেকে সামার ২০২১ পর্যন্ত ব্যাচেলর ও মাস্টার্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ১২ হাজার ১৬৮ জন শিক্ষার্থীকে ডিগ্রি প্রদান করা হয়। এর মধ্যে ১০ হাজার ৩৪৩ জন স্নাতক ও এক হাজার ৮২৫ জন স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী। কৃতিত্বপূর্ণ ফল অর্জনকারী ১২ জন গ্র্যাজুয়েটকে স্বর্ণপদক প্রদান করেন শিক্ষামন্ত্রী। এ ছাড়া এবারই প্রথম প্রবর্তন করা বাংলাদেশের সুবর্ণ জয়ন্তী পদক ও শেখ মুজিবুর রহমান স্বর্ণপদক পেয়েছেন দুজন শিক্ষার্থী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শুধু সমস্যার কথা বলি, সমাধান খুঁজি না। আমরা প্রচুর কথা বলি, কিন্তু যোগাযোগ তৈরি করতে পারি না। আমরা অনেক চিন্তা করি, কিন্তু কোনো সমস্যার গভীরে গিয়ে চিন্তা করতে পারি না। এসব সমস্যার সমাধানে উদ্যোগী না হলে দেশ উন্নত হবে না। ’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয় তোমাদের যে শিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলেছে তা কাজে লাগিয়ে তোমরা দেশমাতৃকার সেবা করবে। ’ দীপু মনি জন্মদাত্রী, মাতৃভাষা এবং মাতৃভূমি এই তিন মাকে অন্তরে ধারণ করার আহ্বান জানান।

সমাবর্তন বক্তা নোবেল জয়ী কৈলাস সত্যার্থী ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশ একটি অপার সম্ভাবনার দেশ। এই দেশের সবচেয়ে সম্ভাবনাময় শক্তি হচ্ছে তরুণ ও যুবসমাজ। তোমাদের অপরিসীম মেধা, যোগ্যতা ও পরিশ্রমের ওপর ভর করে বাংলাদেশ বিস্ময়কর উন্নতি করেছে। ’

কৈলাস সত্যার্থী বলেন, ‘চারটি অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করি তোমাদের সঙ্গে। প্রথম কথা, স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে চেষ্টা করো। এ জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে হবে এবং হাল ছাড়া যাবে না। এরপর, যত ঝড়ঝাপটাই আসুক, কখনো আশা হারাবে না। তৃতীয়ত, বৈচিত্র্যকে গ্রহণ করো। পৃথিবীতে বৈচিত্র্য আছে বলেই পৃথিবী এত সুন্দর। সবশেষে বলি, মানুষের জন্য কিছু না কিছু করো। পৃথিবীতে এখনো অন্তত ১৬০ মিলিয়ন শিশু শিক্ষার অধিকার থেকে বঞ্চিত হয়ে আছে। চেষ্টা করো, তাদের শিক্ষার দায়িত্ব নেওয়ার। ’

সমাবর্তনে বিশেষ অতিথি হিসেবে ভিডিও বার্তা পাঠান বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাজী শহীদুল্লাহ। এ ছাড়া বক্তব্য দেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ড. মো. সবুর খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম লুৎফর রহমান, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এস এম মাহবুব উল হক মজুমদার প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা