kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

রাজধানীতে তিনজনের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১০ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রাজধানীর সবুজবাগ ও কামরাঙ্গীর চর এলাকা থেকে শিক্ষার্থীসহ তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মরদেহ তিনটি ময়নাতদন্তের জন্য গত শনিবার দিবাগত রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

মৃত ব্যক্তিরা হলেন সবুজবাগের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম (১৮), কামরাঙ্গীর চরের রহিদুল ইসলাম হৃদয় (২২) ও রাসেল হোসেন (২৫)।

শফিকুলের মামাতো ভাই মো. লালন আহমেদ বলেন, বরিশাল সদর উপজেলার চাঁদপুরা গ্রামের মাজহারুল ইসলামের ছেলে শফিকুল।

বিজ্ঞাপন

তাঁরা সবুজবাগ বাগপাড়া পশ্চিম রাজারবাগে থাকতেন। মিরপুর বাঙলা কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তিনি।

সবুজবাগ থানার এসআই বিমল চন্দ্র বলেন, গত শনিবার দিবাগত রাতে খবর পেয়ে বাসার দরজা ভেঙে শফিকুলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। কক্ষের ভেতর ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় ছিল মরদেহটি। মানসিক হতাশায় তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

কামরাঙ্গীর চর থানার এসআই মনিরুজ্জামান বলেন, গত শনিবার রাত দেড়টায় পশ্চিম ইব্রাহিমনগর বালুর মাঠ এলাকায় একটি বাড়ির দ্বিতীয় তলায় দরজা ভেঙে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচানো ঝুলন্ত অবস্থায় হৃদয়ের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এর আগে রাত ১১টার দিকে তিনি ফেসবুকে একটি পোস্ট করেছিলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, বিদায় ফেসবুক ফ্রেন্ড। ’ ধারণা করা হচ্ছে, তিনি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

হৃদয়ের ভাই মো. সাগর বলেন, তাঁদের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলায়। তাঁর বাবা মৃত মৌলভি কায়সার। কামরাঙ্গীর চরে একটি ছবি বাঁধাই কারখানায় কাজ করতেন হৃদয়।

কামরাঙ্গীর চর থেকে রাসেল হোসেন নামে একজন রাজমিস্ত্রির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রাসেলের ভগ্নিপতি রিয়াজ বলেন, তাঁর বাড়ি বরগুনা সদর উপজেলায়।

কামরাঙ্গীর চর থানার এসআই মো. রনি চৌধুরী বলেন, গত শনিবার দুপুরে ঝাউচর লবণ ফ্যাক্টরি গলির একটি বাড়ি থেকে রাসেলের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

এসআই রনি বলেন, এক মাস আগে রুমি নামের এক নারীকে বিয়ে করেন রাসেল। এরই মধ্যে তাঁদের মাঝে পারিবারিক কলহ হয়। এর জের ধরে রাসেল গত শনিবার দুপুরে খাটের খুঁটির সঙ্গে গামছা পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়েছেন বলে তাঁরা জেনেছেন।

এ ঘটনায় বোনজামাই রিয়াজ বাদী হয়ে আত্মহত্যার প্ররোচনায় মামলা করেছেন। পুলিশ রাসেলের স্ত্রী রুমি ও তাঁর পূর্বপরিচিত কাইয়ূম নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।



সাতদিনের সেরা