kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

স্বামী পলাতক

বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে আ. লীগ নেতার স্ত্রী গ্রেপ্তার

হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

১০ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে মৌচাক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা সেলিম হোসেনের স্ত্রী আফরুজা আক্তার ঝুমুরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে সেলিম এখনো পলাতক। হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে এলাকাবাসী গতকাল রবিবার সড়ক অবরোধ করে।

সেলিম হোসেন ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, আব্দুল মান্নান (৬৫) নামের প্রতিবেশী এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যা করেছেন তাঁরা।

বিজ্ঞাপন

বৃদ্ধের গোপনাঙ্গে গুরুতর আঘাত করা হয়েছে। এ ঘটনায় বৃদ্ধের স্ত্রী জাহানারা বেগম, ছেলে জাহাঙ্গীর আলম ও ১১ বছরের নাতি জিসান আহত হয়। আব্দুল মান্নান উপজেলার মাঝুখান গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর ছেলে ফারুক হোসেন গতকাল কালিয়াকৈর থানায় মামলা করেন।

সেলিম মৌচাক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক। তাঁর স্ত্রী আফরুজা আক্তার উপজেলা যুব মহিলা লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক।

আব্দুল মান্নান ও সেলিম হোসেন প্রতিবেশী। তাঁদের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমির সীমানা নিয়ে বিরোধ রয়েছে। গত শুক্রবার আব্দুল মান্নান ও তাঁর ছেলেরা নিজেদের জমির সীমানায় একটি টিনের বেড়া দেন। খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে স্বামী ও স্ত্রী লোকজন নিয়ে তাঁদের ওপর হামলা চালান। সেলিম ও তাঁর স্ত্রী মর্নিং সান প্রি-ক্যাডেট অ্যান্ড হাই স্কুল নামের একটি প্রতিষ্ঠান চালান। হামলার সময় ওই স্কুলের শিক্ষার্থীদের লাঠিসোঁটা হাতে দেখা যায়। আফরুজা আক্তার শিক্ষার্থীদের লেলিয়ে দেন বলে অভিযোগ। হামলার সময় আব্দুল মান্নানের বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয় এবং তাঁকে এলোপাতাড়ি পেটানো হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

আব্দুল মান্নানের এক ছেলে জাতীয় জরুরি সহায়তা নম্বর ৯৯৯-এ ফোন করলেও কোনো তাৎক্ষণিক সহায়তা পাননি বলে অভিযোগ তাঁর পরিবারের।

এদিকে আব্দুল মান্নান হত্যার বিচার দাবি করে গতকাল সফিপুর-মাঝুখান ও মাঝুখান-ভান্নারা আঞ্চলিক সড়ক অবরোধ করে এলাকাবাসী। প্রায় দেড় ঘণ্টা ধরে তারা রাস্তা অবরোধ করে রাখে। ওই স্কুলটি গতকাল বন্ধ ছিল।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মোশারফ হোসেন জানান, এর আগেও কয়েকবার মান্নান পরিবারের ওপর হামলা চালানো হয়েছিল। সেসব ঘটনায় মামলাও রয়েছে।

কালিয়াকৈর থানার ওসি আকবর আলী খান বলেন, ‘এ ঘটনার জড়িত সেলিমসহ অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত আছে। ’



সাতদিনের সেরা