kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

কালিয়াকৈরে সড়কের পুরনো ইট বিক্রির অভিযোগ

নদীর তীর কেটে সড়ক সংস্কার

♦ কাবিখা প্রকল্পের আওতায় কাজটি তদারকি করছে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয়
♦ সড়কের ইটগুলো কিনে নিয়েছে স্থানীয় মেসার্স ভাই ভাই এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নদীর তীর কেটে সড়ক সংস্কার

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার জালশুকা-দরবাড়িয়া সড়ক সংস্কার করা হচ্ছে নদীর পাড় কেটে। ছবিটি গত রবিবার তোলা। ছবি : কালের কণ্ঠ

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে একটি আঞ্চলিক সড়কের পুরনো ইট বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া ওই সড়কের সংস্কারকাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় লোকেরা।

এলাকাবাসী, ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের জালশুকা-দরবাড়িয়া সড়কের সংস্কারকাজ চলছে।

বিজ্ঞাপন

সড়কটির দরবাড়িয়া অংশে প্রায় সাত বছর আগে কার্পেটিং করা হয়। সড়কের বাকি প্রায় এক হাজার মিটার অংশ জালশুকা বাজার থেকে ইটভাটা পর্যন্ত ইটের সলিং ছিল। গত ১৫ নভেম্বর সড়কের ওই এক হাজার মিটারসহ পুরো সড়কের সংস্কারকাজের অনুমোদন দেওয়া হয়। কাবিখা প্রকল্পের আওতায় ৫৩ টন গম বরাদ্দের কাজটি তদারকি করছে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয়। কিন্তু কাজের শুরুতেই কয়েক লাখ টাকার বিনিময়ে সড়কের পুরনো ইটগুলো বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। সড়কের ইটগুলো কিনে নিয়েছেন স্থানীয় মেসার্স ভাই ভাই এন্টারপ্রাইজ নামের একটি ইট-বালু ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। তা ছাড়া নিয়ম অনুযায়ী অসহায় হতদরিদ্র জনবল দিয়ে কাবিখার কাজ করার কথা। কিন্তু ভেকু দিয়ে চলছে প্রকল্পের কাজ। সড়ক ঘেঁষে নদীর তীরের মাটি কেটে ভরাট করা হলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা। এ ঘটনায় ভুক্তভোগী কৃষকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

সড়কের ইট কেনা ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ‘মেসার্স ভাই ভাই এন্টারপ্রাইজের’ স্বত্বাধিকারী আসাদুল ইসলাম বলেন, ‘ওই মহিলা মেম্বারের সঙ্গে থাকেন সাইফুল নামে এক ব্যক্তি। তিনি ওই সড়কের পুরনো ইটগুলো আমাদের কাছে বিক্রি করেছেন। ’ ওই প্রকল্পের সভাপতি সংরক্ষিত মহিলা সদস্য আমেনা খাতুন বলেন, ‘রাস্তার ইটগুলো বিক্রি করা হয়নি, রাস্তায়ই আছে। ’



সাতদিনের সেরা