kalerkantho

শুক্রবার । ১২ আগস্ট ২০২২ । ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৩ মহররম ১৪৪৪

বিধিমালা না করে গণপরিবহনের ভাড়া না বাড়াতে রিট

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৫ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সংশ্লিষ্ট আইন অনুযায়ী বিধিমালা প্রণয়ন না করে ভবিষ্যতে বাস-মিনিবাসসহ সব ধরনের গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞাসহ একগুচ্ছ নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো. আবু তালেব গতকাল মঙ্গলবার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট আবেদনটি করেন।

কালের কণ্ঠকে আবু তালেব বলেন, বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনটি শুনানির জন্য কাল বুধবার (আজ) উপস্থাপন করা হতে পারে।  

রিট আবেদনে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, সহকারী সচিব, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান, পরিচালককে (প্রকৌশল) বিবাদী করে রুলসহ নির্দেশনার আরজি জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮-এর ১১২ ধারা অনুসারে, বিধিমালা প্রণয়ন না করে করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যে ২০২০ সালে সব ধরনের বাস-মিনিবাসে ৬০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর পর ওই বছরের ৯ আগস্ট সে সিদ্ধান্ত বাতিল করে গত বছর ৭ নভেম্বর ডিজেলচালিত সব ধরনের বাস-মিনিবাসের ভাড়া বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কেন বেআইনি ও সাংঘর্ষিক ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে রুল চাওয়া হয়েছে রিট আবেদনে।

গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা চাওয়ার পাশাপাশি হাইকোর্টের তত্ত্বাবধানে সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮-এর ১২২ ধারা অনুসারে যথাযথ একটি বিধিমালা প্রণয়নের আরজি জানানো হয়েছে রিট আবেদনে।

এ ছাড়া বাস-মিনিবাসসহ গণপরিবহনগুলো কী দিয়ে (ডিজেল, গ্যাস, অকটেন, পেট্রল) চলছে বা চালানো হচ্ছে, তা এক মাসের মধ্যে চিহ্নিত করে দেওয়ার নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে।

সেই সঙ্গে প্রতিটি বাস-মিনিবাস স্ট্যান্ড বা স্টপেজের দৃশ্যমান স্থানে ভাড়ার হারের তালিকা প্রদর্শনের পাশাপাশি এক মাসের মধ্যে জনসমাগমস্থলে ভাড়ার হারের ই-বিলবোর্ড স্থাপনে আদালত যাতে নির্দেশনা দেন, রিটে সে আরজিও করা হয়েছে।

এর আগে গত বছর ১ ডিসেম্বর বিবাদীদের কাছে আইনি নোটিশ পাঠিয়েছিলেন রিট আবেদনকারী। গণপরিবহনে বেআইনি, অযৌক্তিক ও অস্বাভাবিক ভাড়া বৃদ্ধি, ভাড়া বাড়ানোর নামে সাধারণ যাত্রী হয়রানি বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানানো হয়েছিল সেই নোটিশে।



সাতদিনের সেরা