kalerkantho

সোমবার । ৮ আগস্ট ২০২২ । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ । ৯ মহররম ১৪৪৪

শ্রীপুরে ছয় দিন পর হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার

অটোরিকশাচালক নিখোঁজ

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর   

২৭ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গাজীপুরের শ্রীপুরে নিখোঁজের ছয় দিন পর বাড়ি থেকে প্রায় আট কিলোমিটার দূরে গহিন বনে এক অটোরিকশাচালকের হাত-পা ও মুখ বাঁধা অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল রবিবার দুপুরে শ্রীপুর-কালিয়াকৈর সড়কে হাসিখালী সেতুসংলগ্ন শিমলাপাড়া গ্রামে সংরক্ষিত গজারি বন থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। মরদেহটির ডান চোখ উপড়ানো ছিল।

নিহত ব্যক্তির নাম মো. শামীম হোসেন (৩০)।

বিজ্ঞাপন

তিনি পাশের বারতোপা গ্রামের ছামান

মিয়ার ছেলে। তিনি মাওনা ইউনিয়নে বিভিন্ন সড়কে ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চালাতেন।

শামীমের চাচা এজাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, মরদেহ উদ্ধার হলেও তাঁর (শামীম) অটোরিকশাটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাঁদের ধারণা, দুর্বৃত্তদল অটোরিকশা ছিনতাইয়ের পর চিনে ফেলায় তাঁর ভাতিজাকে বনের ভেতর নিয়ে হাত-পা ও মুখ বেঁধে হত্যার পর মরদেহ ফেলে গেছে।

শামীমের বড় ভাই আমিনুল ইসলাম জানান, ২০ ডিসেম্বর ভোরে অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন শামীম। সকালে নাশতা এমনকি দুপুরের খাবার খেতেও বাড়ি আসেননি তাঁর ছোট ভাই। সন্ধ্যায় তাঁর (শামীম) স্ত্রী তাঁকে ফোন করে মোবাইল ফোন বন্ধ পান। এতে সন্দেহ হলে রাতভর ব্যাপক খোঁজাখুঁজি করেও কোনো হদিস পাননি। নিখোঁজের ঘটনায় ২১ ডিসেম্বর শ্রীপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তিনি। পরে র‌্যাব-১-এ ঘটনাটি জানান তাঁরা। আজ (রবিবার) দুপুরে চার থেকে পাঁচজন নারী পাশের শিমলাপাড়া গ্রামে গহিন গজারি বনের ভেতরে হাত-পা ও মুখ বাঁধা

একজনের মরদেহ দেখতে পান। পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি শনাক্ত করে।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) এসআই মফিজুর রহমান মল্লিক বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, হাত-পা ও মুখ বেঁধে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ ফেলে গেছে খুনিরা। সেখানে ধস্তাধস্তির আলামত ছিল।



সাতদিনের সেরা