kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

দাওয়াই

ফিটনেস ধরে রাখে ভাতঘুম

২৭ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফিটনেস ধরে রাখে ভাতঘুম

ভাতঘুম প্রচলিত অর্থে ভাত খেয়ে কয়েক ঘণ্টার মতো ঘুম নয়। প্রচলিত ঘুমের চারটি সার্কেল থাকে এবং যা শেষ হতে কমপক্ষে দুই ঘণ্টার মতো সময় লাগে। ভাতঘুম হলো, কাজের ফাঁকে ১০ মিনিট থেকে আধাঘণ্টা পর্যন্ত ঘুমিয়ে নেওয়া, যাকে ন্যাপ বলে।

উপকারিতা

ফিটনেস ধরে রাখার জন্য ভাতঘুম বেশ উপকারী।

বিজ্ঞাপন

এটা হার্ট, কিডনি ভালো রাখে; ডায়াবেটিস, থাইরয়েড নিয়ন্ত্রণে রাখে; ক্লান্তি দূর করে, মনসংযোগ বাড়ায়, হরমোনের ভারসাম্য রক্ষা করে, মন ভালো রাখে, অনিদ্রা রোধ করে, হজমশক্তি বাড়ায়, চর্বি কমায়, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে ইত্যাদি।

 

নিয়মাবলি

* দুপুরে খাবার পর দুপুর ১টা থেকে বিকেল ৩টার মধ্যে এই ঘুম দেওয়া ভালো।

* ঘুমের পজিশন হলো, বাম দিকে কাত হয়ে শুলে ভালো হয়।

* ভাতঘুমের সময় ঘর অন্ধকার রাখা ভালো। চোখে যেন আলো না লাগে সেদিকে খেয়াল করুন।

* ১০ থেকে ২০ মিনিটের জন্য ঘুমালে চলে। তবে ৩০ মিনিটের বেশি ঘুম নয়।

* অফিসে থাকলে চেয়ারে বা আরাম কেদারায় বসে ৫ থেকে ১০ মিনিট চোখ বুজে থাকুন।

 

জরুরি নাপিং

কেউ হয়তো গাড়ি চালাচ্ছেন। তাঁর হয়তো ঘুম ঘুম লাগছে। এই অবস্থায় গাড়ি চালানোর আগে ৫ থেকে ১০ মিনিট ন্যাপিং নিতে পারেন। আবার অফিসে খাবার পর কেউ জরুরি ৫ মিনিট ন্যাপিং নিতে পারেন।

 

যা করবেন না

* সেলফোন, পিসি, ল্যাপটপ ইত্যাদির মনিটর বা স্ক্রিন থেকে কিছুটা সময় বিরতি নিয়ে তারপর ভাতঘুমে যান।

* ওই সময় চা-কফি পান করবেন না।

* কারো ঘুম না এলে জোর করে ভাতঘুম দিতে যাবেন না। এতে স্ট্রেস তৈরি হতে পারে।

* ভাতঘুম দিতে গিয়ে কয়েক ঘণ্টা ঘুমিয়ে পড়বেন না। এতে রাতের ঘুমে সমস্যা তৈরি হতে পারে।

 

পরামর্শ দিয়েছেন

ডা. হাবিবুর রহমান

সিনিয়র মেডিক্যাল অফিসার

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল।



সাতদিনের সেরা