kalerkantho

শনিবার । ২৫ জুন ২০২২ । ১১ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৪ জিলকদ ১৪৪৩

চট্টগ্রামে ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষে তিনজন নিহত

হিউম্যান হলারটি চালাচ্ছিলেন বদলি চালক!

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৬ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চট্টগ্রামে ডেমু ট্রেনের সঙ্গে সিএনজিচালিত অটোরিকশা, অটোটেম্পো ও হিউম্যান হলারের সংঘর্ষে তিনজনের মৃত্যুর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। গত শনিবার সকালে ওই দুর্ঘটনার পর রাতেই রেলওয়ে থানায় এক পুলিশ কর্মকর্তা বাদী হয়ে মামলাটি করেন। এতে হিউম্যান হলারের চালককে প্রধান আসামি করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই ওই চালক পলাতক।

বিজ্ঞাপন

এদিকে অনেকেই বলছে, খুলশী রেলওয়ে লেভেলক্রসিংয়ের গেটম্যান আলমগীর ভূইয়া ক্রসিংয়ের এক প্রান্তে লোহার বার ফেললেও অপর প্রান্তে না ফেলার কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা রেল পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাও গেটম্যানকে প্রাথমিক দায়ী মনে করলেও মামলায় তাঁর নাম নেই! এ নিয়েও উঠেছে নানা প্রশ্ন। ঘটনার পর থেকে গেটম্যানও পলাতক।

এদিকে ওই ঘটনায় রেলওয়ে থানা প্রশাসন ও পূর্বাঞ্চল রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের তিন সদস্যের পৃথক তদন্ত কমিটি গতকাল রবিবার থেকে তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে।  

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ঘটনার সময় খুলশী রেলওয়ে লেভেলক্রসিংয়ে লাইনের পাশে ছিল প্রথমে সিএনজিচালিত অটোরিকশা, এরপর টেম্পো। এই দুটি যাত্রীবাহী গাড়িকে পেছন থেকে ধাক্কা দেয় একটি হিউম্যান হলার। এতে অটোরিকশা ও টেম্পো সামনে এগিয়ে গেলে ট্রেনের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে যান দুটি দুমড়েমুচড়ে গেছে। হিউম্যান হলারের কয়েকজন যাত্রী হালকা আহত হলেও চালক ও সহকারী পালিয়ে যান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক চট্টগ্রাম নগর পরিবহনের সঙ্গে সম্পৃক্ত একাধিক নেতা জানান, ওই হিউম্যান হলারের চালকের নাম মোহাম্মদ শহীদ। তিনি ওই দিন বদলি একজনকে দিয়ে গাড়িটি চালিয়েছেন। তবে ওই বদলি চালক কে, তা জানা যায়নি। পুলিশ তদন্ত করে দেখছে, ওই বদলি চালক আসলেই চালক, নাকি হেলপার। মালিক সংগঠনের এক নেতা জানান, পুলিশকে তাঁরা এ ব্যাপারে তথ্য দিয়েছেন।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিনের সঙ্গে মুঠোফোনে গতকাল সন্ধ্যায় বেশ কয়েকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। পরে ডিউটি অফিসার এসআই আবুল হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ষোলশহর রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর বাদী হয়ে হিউম্যান হলারের চালককে (অজ্ঞাতপরিচয়)

আসামি করে থানায় মামলা করেছেন। তাঁকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি বেলায়েত হোসেন বেলাল বলেন, ‘হিউম্যান হলারটি আমাদের সংগঠনের নয়। কে গাড়িটি চালিয়েছেন, তা আমরা জানি না। শুনেছি, পুলিশ তদন্ত করছে। ’

এদিকে ঘটনাস্থলে গতকাল কয়েক দফায় পাহাড়তলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজসহ নগরের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করেছে। নিহত তিনজনের মধ্যে একজন পাহাড়তলী কলেজের এবার এইচএসসি পরীক্ষার্থী সাদরাজ উদ্দিন শাহীন। তাঁর মৃত্যুর প্রতিবাদে এবং দোষীদের শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীদের মিছিলে এলাকার সাধারণ মানুষও অংশ নেয়। এ সময় এলাকায় যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হয়।

উল্লেখ্য, গত শনিবার সকাল পৌনে ১১টার দিকে ষোলশহর-চট্টগ্রাম রেললাইনের নগরের ঝাউতলা খুলশী রেলওয়ে লেভেলক্রসিংয়ে ট্রেনের সঙ্গে তিন গাড়ির সংঘর্ষ হয়। এতে নগর ট্রাফিক পুলিশ সদস্য মো. মনিরুল ইসলাম (৪৪), প্রকৌশলী সৈয়দ বাহাউদ্দিন আহমদ (৩১) ও পাহাড়তলী কলেজের এইচএসসি পরীক্ষার্থী সাদরাজ উদ্দিন শাহীন (১৯) নিহত হন। এ ছাড়া আহতদের মধ্যে পাঁচজন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।



সাতদিনের সেরা