kalerkantho

বুধবার । ৫ মাঘ ১৪২৮। ১৯ জানুয়ারি ২০২২। ১৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

নামের মিলে মাদক কারবারির জেল খাটছে কলেজছাত্র!

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাবার নাম আলাদা। গ্রামও আলাদা। শুধু নামের মিল রয়েছে। পুলিশের গাফিলতিতে মামলার আসামি মাদক কারবারি রাকিবের পরিবর্তে জেল খাটছে কলেজছাত্র ‘রাকিব’। ঘটনাটি গাজীপুরের কালীগঞ্জে।

জেলহাজতে থাকা কলেজছাত্র ‘রাকিব’ উপজেলার নাগরী ইউনিয়নের রাথুরা গ্রামের আক্তার হোসেনের (৫০) ছেলে। আর আসামি রাকিব উপজেলার পাড়াবর্তা (নাওটান) গ্রামের তাইজ উদ্দিন তাজুর ছেলে।

আক্তার হোসেন জানান, রাকিব তাঁর একমাত্র ছেলে। উত্তরার একটি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ে। অভাবের সংসার তাঁর। পরিবারকে সহযোগিতা করতে রাকিব লেখাপড়ার পাশাপাশি গ্রামের পোলট্রি ফার্ম থেকে মুরগি নিয়ে উত্তরায় বিক্রি করে। গত ২৭ আগস্ট গাজীপুর ডিবি পুলিশ ২০৩ ক্যান বিয়ারসহ রাথুরা গ্রামের তাইজ উদ্দিনের ছেলে শহিদুল্লাহকে

(৩২) আটক করে। পরের দিন ২৮ আগস্ট ডিবি পুলিশের এসআই ওবায়দুর রহমান বাদী হয়ে শহিদুল্লাহর ছোট ভাই আশরাফুল এবং রাকিব ও রুবেলের নাম উল্লেখ করে কালীগঞ্জ থানায় মাদকের মামলা করেন। মামলায় রাকিব ও রুবেলের বাবার নাম অজ্ঞাত। ওই মামলায় ডিবি পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেওয়ার আগে আসামিদের নাম ও ঠিকানা যাচাইয়ের জন্য কালীগঞ্জ থানায় অনুসন্ধান স্লিপ পাঠায়। অনুসন্ধানের দায়িত্ব পান উলুখোলা পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই মুকুল তালুকদার। তিনি এলাকায় না গিয়ে গোপনে রাকিবের বাবা হিসেবে তাঁর (আক্তার হোসেন) নাম এবং গ্রামের ঠিকানা উল্লেখ করে প্রতিবেদন জমা দেন।

নভেম্বর মাসের শুরুতে আক্তার হোসেন জানতে পারেন যে তাঁর ছেলেকে ওই মামলায় জড়ানো হয়েছে। গত ৯ নভেম্বর রাকিব আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান। আদালত জামিন না দিয়ে তাকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন। সেই থেকে গত ২২ দিন সে জেলহাজতে।

গাজীপুর জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ আমির হোসেন জানান, অনুসন্ধান স্লিপের মাধ্যমে প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হয়েছে। ভুল হয়ে থাকলে তার দায়িত্ব তদন্ত কর্মকর্তার।



সাতদিনের সেরা