kalerkantho

সোমবার । ৩ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আমাদের অনেক ঋণ’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২ ডিসেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আমাদের অনেক ঋণ’

বঙ্গভবন থেকে গতকাল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ছবি : পিআইডি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আমাদের ঋণ অনেক। এই ঋণ গৌরবের। ‘শতবর্ষের আলোয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ অনুষ্ঠানের আলোচনা পর্বে এভাবেই বলেছেন ইমেরিটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।

গতকাল বুধবার বিকেলে অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহিরয়ার আলম, ডাকসুর সাবেক ভিপি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সোনালী চক্রবর্তী ব্যানার্জি, ডেইলি অবজারভার সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী ও বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক সৈয়দ হুমায়ুন আখতার।

অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে শিক্ষা পেয়েছি, এর মধ্যে দুটো শিক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একটি হচ্ছে সামাজিকতা, আরেকটি হলো গণতান্ত্রিকতা। এই দুটো শিক্ষার পেছনে একটি চেতনা আছে, সেটি হলো ধর্মনিরপেক্ষতার চেতনা। এটি না থাকলে সামাজিকতা অগ্রসর হয় না। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা হয় না।’

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘বঙ্গভঙ্গ রদের পর এই অঞ্চলের শিক্ষার যে ক্ষতি সাধিত হয়েছিল তার অনেকটাই পুষিয়ে দিতে পেরেছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় নিরবচ্ছিন্নভাবে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে বাঙালি জাতিকে বহু অজানা নতুন পথ দেখিয়েছে।’  

মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ‘আজ থেকে ৫০ বছর আগে ষাটের দশকে ও সত্তর-পরবর্তী সময়কালই  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বর্ণযুগ। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কারণেই লেখাপড়া, দেশসেবা, জাতির স্বার্থরক্ষায় জনগণের পাশে দাঁড়ানোর মতো অসাধারণ সব নির্মাণ সেই সময় সম্ভব হয়েছিল।’

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শুরুতেই শতবর্ষের ‘থিম সং’ পরিবেশন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের শিক্ষার্থীরা। একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্র্রী আসাদুজ্জামান নূর।



সাতদিনের সেরা