kalerkantho

শনিবার ।  ২১ মে ২০২২ । ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩  

জেএনএনপিএফের আলোচনায় বক্তারা

করোনাকালে নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩০ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দেশে নারী ও শিশু নির্যাতন, নিপীড়ন ও ধর্ষণের মতো ঘটনা বেড়েই চলেছে। তা ছাড়া করোনার সময়ে নারীর প্রতি সহিংসতা উদ্বেগজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনাকালীন মানুষের আয় হ্রাস, কর্মসংস্থানের অভাব, সীমিত বিচারিক কার্যক্রম, মামলার বিষয়ে অনাগ্রহ, পুরুষের অতিরিক্ত সময় ঘরে অবস্থান ইত্যাদি কারণে নারীর প্রতি সহিংসতা উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। গতকাল সোমবার ‘নারীর প্রতি সহিংসতার চিত্র বিশ্লেষণ এবং জাতীয় নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ফোরামের পদক্ষেপ’ শীর্ষক এক ওয়েবিনারে আলোচকরা এসব কথা বলেন।

বিজ্ঞাপন

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের সহযোগিতায় জাতীয় নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ফোরাম (জেএনএনপিএফ) ওই ওয়েবিনার আয়োজন করে।

ওয়েবিনারে জেএনএনপিএফ (২৬টি মানবাধিকার সংগঠনের প্ল্যাটফর্ম) দেশের ২০টি জেলা থেকে পাওয়া তথ্য অনুয়ায়ী দাবি করে, চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত দেশের ২০টি জেলায় ৬০৯টি পারিবারিক নির্যাতন, ৪২টি ধর্ষণ, ২৩৯টি যৌতুকের জন্য নির্যাতন এবং ১১২টি বাল্যবিবাহের মতো ঘটনার অভিযোগ এসেছে তাদের কাছে। তা ছাড়া এই সময়ে ৭২টি বহুবিবাহ, ৭৩টি তালাক, একটি হত্যা ও পাঁচটি আত্মহত্যা, ১৩২টি দাম্পত্য কলহ এবং অন্যান্য ৯৪টি ঘটনাসহ সর্বমোট এক হাজার ৩৭৯টি অভিযোগ নথিভুক্ত হয়। সেগুলোর মধ্যে ৮৬৩টি নিষ্পত্তি হয়েছে।

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ্ কবির বলেন, ‘অ্যাকশনএইড বাংলাদেশ এ বিষয়ে ২০০৬ সাল থেকে প্রতিরোধ ফোরামের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করে আসছে। করোনা মহামারিতেও আমরা একত্রে চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করেছি। ’

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের ম্যানেজার (উইম্যান রাইটস অ্যান্ড জেন্ডার ইকুইটি) মরিয়ম নেসার সঞ্চালনায় এসব তথ্য তুলে ধরেন জেএনএনপিএফের সভাপতি মমতাজ আরা বেগম, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম, ফরিদপুরের রাসিনের নির্বাহী পরিচালক আছমা আক্তার মুক্তা, নেত্রকোনার স্বাবলম্বী উন্নয়ন সংস্থার ম্যানেজার কুহিনুর বেগম প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা