kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ মাঘ ১৪২৮। ২০ জানুয়ারি ২০২২। ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

মেম্বারের ঘর থেকে ৬ দিন পর উদ্ধার অটোচালক

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) প্রতিনিধি   

২৮ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



৯৯৯ নম্বর থেকে ফোন পেয়ে ইউপি মেম্বারের তালাবদ্ধ ঘর থেকে রাসেল শেখ নামের এক অটোরিকশাচালককে উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিখোঁজের ছয় দিন পর গত শুক্রবার রাতে তাঁকে উদ্ধার করা হয়। অভিযোগ, পূর্বশত্রুতার জের ধরে রাসেলকে অটোরিকশা চুরির অপবাদ দিয়ে বেধড়ক মারধরের পর ঘরটিতে তালাবদ্ধ করে রেখেছিলেন মেম্বার। ঘটনাটি রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের।

উদ্ধার হওয়া রাসেল শেখ (১৯) দৌলতদিয়ার সৈদালপাড়া গ্রামের নজরুল শেখের ছেলে। অভিযুক্ত ওসমান কাজী (৩৭) দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বার)। স্থানীয় তাহের কাজীপাড়া গ্রামের মৃত উম্বার কাজীর ছেলে তিনি। এ ঘটনায় গতকাল শনিবার রাসেলের খালা শুকুরজান বেগম বাদী হয়ে ওসমান কাজীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি মামলা করেছেন। ওসমানের ভাই মকবুল কাজীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ওসমান কাজীর সঙ্গে অটোরিকশাচালক রাসেলের পূর্বশত্রুতা ছিল। প্রায় তিন মাস আগে সৈদালপাড়ার সোনামুদ্দিনের একটি অটোরিকশা চুরি হয়। পরে এই ঘটনার সুযোগ নেন ওসমান। তিনি ঘটনার দিন (২০ নভেম্বর) সকালে রাসেলকে দৌলতদিয়া ইউপি কার্যালয়ে ডেকে নেন। সেখানে বিচার করার নামে অটোরিকশা চুরির অপবাদ দিয়ে রাসেলকে বেধড়ক মারধর করেন ওসমান। পরে দুপুরে মকবুল কাজী (২৮), আসাদ কাজী (৩২), হালিম (৪৭) ও মঞ্জু (৩৭) মিলে ইউপি কার্যালয় থেকে রাসেলকে ওসমানের বাড়িতে নিয়ে যান। সেখানে ওসমানের ভাই মকবুল কাজীর বসতঘরের একটি কক্ষে রাসেলকে রেখে দরজায় তালা মেরে আটকে রাখা হয়। এদিকে দিন গড়িয়ে সন্ধ্যা হলেও রাসেল বাড়িতে না ফেরায় পরিবারের লোকজন চিন্তিত হয়ে পড়েন। অনেক খুঁজেও তাঁকে পাওয়া যাচ্ছিল না।

গত শুক্রবার রাত ৯টার দিকে লোকমুখে খবর পেয়ে রাসেলের পরিবারের লোকজন ওসমানের বাড়িতে ছুটে যান। এ সময় তালাবদ্ধ ঘরের ভেতর থেকে তাঁরা রাসেলের চিৎকারের শব্দ শুনতে পান। অনেক অনুরোধ করা হলেও রাসেলকে ছেড়ে দেননি ওসমান ও তাঁর ভাইয়েরা। পরে রাসেলের খালা শুকুরজান বেগম (৫০) রাত ১০টার দিকে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে সহযোগিতা চান। রাতেই তাহের কাজীপাড়া গ্রামে ওসমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বসতঘরের তালাবদ্ধ একটি কক্ষ থেকে রাসেলকে উদ্ধার ও মকবুল কাজীকে গ্রেপ্তার করে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ। এর আগে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ওসমানসহ পরিবারের লোকজন পালিয়ে যান। রাসেল শেখকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবী কালের কণ্ঠকে বলেন, ঘটনার প্রধান হোতা দৌলতদিয়া ইউপির মেম্বার ওসমান কাজীসহ মামলার অন্য আসামিরা পলাতক। তাঁদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার জোর চেষ্টা চলছে।



সাতদিনের সেরা