kalerkantho

সোমবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ১৭ জানুয়ারি ২০২২। ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

চোর সন্দেহে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, গাজীপুর   

২৮ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সকাল সোয়া ৭টা থেকে সাড়ে ৭টা। কাজে যাওয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন মাজহারুল ইসলাম। পাশের সড়কে উঠতেই তাঁর সামনে আচমকা দুটি মোটরসাইকেল এসে থামে। দুই মোটরসাইকেলে থাকা পাঁচজনই বয়সে তরুণ। কিছু বুঝে ওঠার আগেই ‘চোর’ বলে তাঁকে তুলে নিয়ে যায়।

মাজহারুল ইসলামের অভিযোগ, প্রায় এক কিলোমিটার দূরে নির্জন কলাবাগানের ভেতর নিয়ে হাত-পা বেঁধে তাঁকে নির্মমভাবে পেটায় তারা। একপর্যায়ে তাঁকে বিবস্ত্র করে একটি সিমেন্টের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখে। ওই সময় তাঁর সামনে লুঙ্গি ও জামা আগুনে পুড়িয়ে উল্লাস করে তরুণরা। গতকাল শনিবার গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার রঙ্গিলামোড় এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার মাজহারুল ইসলাম (৩০) ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার চরমছলন্দ গ্রামের রমজান আলীর ছেলে। তিনি শ্রীপুরের রঙ্গিলামোড় এলাকায় স্ত্রী ও একমাত্র মেয়ে নিয়ে ভাড়া বাসায় থেকে বিভিন্ন স্থানে দৈনিক মজুরিভিত্তিক কাজ করেন। নির্যাতনের ঘটনা জেনে পুলিশ মাজহারুল ইসলামকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এদিকে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে নির্যাতনে অভিযুক্ত তরুণরা গাঢাকা দেয়।

মাজহারুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, অভিযুক্ত পাঁচজনের মধ্যে চারজনকে চেনেন তিনি। তারা হলো মুন্না, জাইদুল, মনির ও ইমরান।

তিনি আরো জানান, সকালে বাড়ি থেকে বের হওয়ার সময় তাঁর হাতে দুটি মোবাইল ফোনসেট ছিল। দুটি মোবাইল ফোনসেট দেখে ‘চোর’ বলে তুলে নিয়ে গিয়ে তাঁর ওপর অকথ্য নির্যাতন চালানো হয়।

অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে একাধিকবার চেষ্টা করেও অভিযুক্ত কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সজিব হাসান জানান, নির্যাতনের ঘটনায় গতকাল রাত সাড়ে ৮টা পর্যন্ত থানায় কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



সাতদিনের সেরা