kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

সম্মেলনে বক্তারা

নারীর ক্ষমতায়ন হলেও সম-অবস্থান তৈরি হয়নি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে, কিন্তু এখনো নারীর সম-অবস্থান তৈরি হয়নি। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও নারী নির্যাতনের মাধ্যমে দেশের জনগোষ্ঠীর স্বাধীনতা খর্ব করা হচ্ছে। আমরা যদি নিজেদের পরিবর্তন না করি তাহলে পুলিশ বা আইন-শৃঙ্খলা দিয়ে কোনো কিছুর পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতা নির্মূলের মতো নির্যাতনকে আমরা নির্মূল করতে পারিনি।

বিজ্ঞাপন

দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের জন্য সামাজিক কাঠামোয় কাজ করতে হবে। ’

গতকাল শনিবার ‘নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জাতীয় সম্মেলন ২০২১’-এ অংশ নিয়ে বক্তারা এসব কথা বলেন। রাজধানীর মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর মিলনায়তনে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ‘আমরাই পারি’ সংগঠনের পারিবারিক নির্যাতন প্রতিরোধ জোট এই সম্মেলনের আয়োজন করে।   ‘নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াও একসাথে’—এই স্লোগান সামনে রেখে সম্মেলন আয়োজনে সহযোগিতা করেছে অক্সফাম ও গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডা।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আরমা দত্ত এবং সিনিয়র জেলা জজ ও বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের পরিচালক (প্রশিক্ষণ) গোলাম কিবরিয়া। সভাপ্রধান হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানবাধিকারকর্মী ও ‘আমরাই পারি’ জোটের চেয়ারপারসন সুলতানা কামাল। এ ছাড়া এই জোটের কো-চেয়ারপারসন শাহীন আনাম, অক্সফামের হেড অব জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড সোশ্যাল ইনক্লুশন মাহমুদা সুলতানাসহ দেশের ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নকর্মী, আইনজীবী, সাংবাদিক, নারী অধিকার কর্মীসহ দেড় শতাধিক চেঞ্জমেকার সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

সম্মেলনের প্রথম পর্বে ‘আমরাই পারি’ জোট সম্পাদিত ‘নারীর প্রতি সহিংসতা : আইনের প্রয়োগ, শিখন ও প্রতিবন্ধকতা’, ‘বাংলাদেশে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ : আর্থ-সামাজিক চালিকা শক্তি ও আইনের সীমাবদ্ধতা’ শিরোনামে দুটি গবেষণা ও অধ্যয়ন প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। বিকেল ৩টায় শুরু হয় জাতীয় সম্মেলনের মূল পর্ব।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘দারিদ্র্য ও নিরক্ষরতা নির্মূলের মতো আমরা নির্যাতনকে নির্মূল করতে পারিনি। সমাজের সব নির্যাতন ও অন্যায় দূর করতে সামাজিকভাবে ও রাষ্ট্রীয়ভাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। ’

সংসদ সদস্য আরমা দত্ত নারীদের জন্মগতভাবে চ্যালেঞ্জটেকার বলে আখায়িত করেন।

সুলতানা কামাল বলেন, নারীর ক্ষমতায়ন হয়েছে, কিন্তু নারীর সম-অবস্থান এখনো তৈরি হয়নি। তিনি আরো বলেন, ‘অন্যান্য দেশের সঙ্গে আমাদের জাতীয় সংগীতের পার্থক্য হচ্ছে, আমরা আমাদের দেশকে ভালোবাসার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। তাই একটি অসাম্প্রদায়িক, নির্যাতনমুক্ত, সহিংসতাহীন, সভ্য মানুষের সমমর্যাদার দেশ গড়ে তুলতে আমাদের কাজ করতে হবে। ’



সাতদিনের সেরা