kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

ভারতীয় হাইকমিশনার

বাংলাদেশ-ভারত ভবিষ্যৎ সহযোগিতায় দৃষ্টি দেওয়া দরকার

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

২৭ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে আগামী দিনগুলোতে সহযোগিতায় দৃষ্টি দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী। গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্জনকে উল্লেখযোগ্য অভিহিত করে তিনি বলেন, ‘অতীতে আমরা একসঙ্গে কী করতে পারতাম—এসব না ভেবে ভবিষ্যতে কী করতে পারি, সে বিষয়ে চিন্তা করা দরকার। ’

গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় ঢাকায় বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ল’ অ্যান্ড ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স (বিলিয়া) মিলনায়তনে এক আলোচনা অনুষ্ঠানে দ্বোরাইস্বামী এ আহবান জানান। বিলিয়া ‘রাষ্ট্র গঠন ও সংবিধান : বাংলাদেশের অভিজ্ঞতার তুলনামূলক বিশ্লেষণ’ শীর্ষক ওই সেমিনার আয়োজন করে।

বিজ্ঞাপন

সেমিনারে ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, বাংলাদেশ ও ভারত—দুই দেশের সংবিধান শুধু কথা নয়, চেতনা। চেতনার আলোকেই দুই দেশ শতভাগ না পারলেও অনেক অর্জন করতে পেরেছে।

ভারতীয় হাইকমিশনার আইন খাতে দুই দেশের মধ্যে বিভিন্ন সহযোগিতার উদাহরণ দেন। তিনি বলেন, আদালতের রায় ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদের জন্য ভারত বাংলাদেশকে সফটওয়্যার দেবে। বাংলা ভারতেরও দাপ্তরিক ভাষা। তবে ওই অনুবাদের সফটওয়্যার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাংলা নয়, বাংলাদেশের বাংলা রীতির সঙ্গে সামঞ্জম্যপূর্ণ করে দেওয়া হবে।  

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের আদালতকে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের অতীতের বিভিন্ন রায়ের রেকর্ডে অনলাইনের মাধ্যমে প্রবেশাধিকার দেওয়া হবে। দুই দেশের বিচারব্যবস্থা পরস্পরের কাছ থেকে বিভিন্ন দৃষ্টান্ত নিতে পারবে। ভারতীয় হাইকমিশনার বলেন, প্রজ্ঞার কোনো সীমান্ত নেই। প্রজ্ঞা সর্বত্রই বিস্তৃত।

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, ‘বাংলাদেশের গণতন্ত্র বারবার হোঁচট খেয়েছে। সংবিধান ক্ষতবিক্ষত হয়েছে। সেই ক্ষত এখনো আমাদের বয়ে বেড়াতে হচ্ছে। ’ তিনি বলেন, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তারা বিভিন্ন সময় এই দেশ পরিচালনা করেছে। এখনো সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প দেখা যায়।

বিলিয়ার পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের চেয়ারম্যান ও ডিন অধ্যাপক ড. সরকার আলী আক্কাস।



সাতদিনের সেরা