kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৩ মাঘ ১৪২৮। ২৭ জানুয়ারি ২০২২। ২৩ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফের আন্ত নগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৪ নভেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ফের চালু করা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে আন্ত নগর ট্রেনের যাত্রাবিরতি। গতকাল শনিবার কমলাপুর স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রাবিরতির মাধ্যমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্টেশনে এই বিরতি চালু করা হলো।

গতকাল শনিবার সকালে কমলাপুর রেলস্টেশনে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন জয়ন্তিকার যাত্রীদের হাতে ফুল এবং গার্ড ব্রেকে ফ্ল্যাগ সিগন্যাল দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনে যাত্রাবিরতি কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘আগে যেভাবে যাত্রাবিরতি ছিল আজ (গতকাল) থেকে একইভাবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যাত্রাবিরতি করবে।

বিজ্ঞাপন

সেখানে ১৪টি আন্ত নগর, আটটি মেইল এবং চারটি কমিউটার ট্রেনের যাত্রাবিরতি রয়েছে। ’

গত ২৬ মার্চ ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্টেশনে কর্তব্যরত স্টেশন মাস্টারের রুম, অপারেটিং রুম, ভিআইপি রুম, প্রধান বুকিং সহকারীর রুম, টিকিট কাউন্টার, প্যানেল বোর্ডসহ সিগন্যালিং যন্ত্রপাতি, পয়েন্টের সিগন্যাল বক্সসহ লেভেল ক্রসিং গেট ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা। ওই ঘটনায় রেলওয়ের আড়াই কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। ওই ঘটনার পরদিন থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া স্টেশনে সব আন্ত নগর ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়। প্রায় আট মাস পর এটি আবার চালু করা হলো।

নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, ‘যারা স্বাধীনতাবিরোধী, যারা বাংলাদেশ চায় না তারাই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। প্রক্রিয়া চলমান আছে। ’

স্টেশন আগের চেহারায়

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে গত ২৬ মার্চ সহিংসতা চালিয়ে পুড়িয়ে দেওয়া হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন। প্রায় আট মাস পর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসের যাত্রাবিরতি দিয়ে গতকাল থেকে আবার স্বাভাবিক হলো স্টেশনটি।

গতকাল দুপুর ১২টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশনের পুনরায় উদ্বোধনীতে রেলস্টেশন ধ্বংসকারীদের উদ্দেশে থুতু ফেলতে আহবান জানান ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর-৩ আসনের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। এরপর সবাই থুতু ফেললেন তাণ্ডবকারীদের উদ্দেশে।



সাতদিনের সেরা