kalerkantho

শুক্রবার । ১৪ মাঘ ১৪২৮। ২৮ জানুয়ারি ২০২২। ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ধানমণ্ডি লেকের জায়গা উদ্ধারে অভিযান

এমপি মনোয়ারের ক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ধানমণ্ডি লেকের জায়গা উদ্ধারে অভিযান

ধানমণ্ডি লেকের পারে গতকাল সাম্পান রেস্টুরেন্ট থেকে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বর পর্যন্ত উচ্ছেদ অভিযান চলে। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিশেষ অভিযান চালিয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ধানমণ্ডি লেকের পাশের ছয়টি বাড়ি থেকে লেকের জায়গা উদ্ধার করেছে। গতকাল সকালে লেকের পারে সাম্পান রেস্টুরেন্ট থেকে ধানমণ্ডি ৩২ নম্বর পর্যন্ত উচ্ছেদ অভিযান চলে।

অভিযানকালে গাইবান্ধা-৪ আসন থেকে নির্বাচিত আওয়ামী লীগের এমপি মনোয়ার হোসেন চৌধুরীর বাড়ির সীমানাপ্রাচীরও ভাঙা হয়। এ সময় যুবলীগের নেতাকর্মীরা জড়ো হয়ে মানববন্ধন ও রাস্তা অবরোধ করার চেষ্টা করেন।

বিজ্ঞাপন

এ অবস্থায়ই বাড়িটির সীমানাপ্রাচীর ভেঙে ভেতরের প্রায় আড়াই কাঠা জমি অবমুক্ত করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, লেকের পাশে পড়া বিভিন্ন বাড়ির সীমানাপ্রাচীরসহ ভেতরের গাছপালা ও স্থাপনা ভেঙে বেদখল হওয়া জায়গা উদ্ধার করে ডিএসসিসি। পাঁচজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে এই উচ্ছেদ অভিযান চলে। অভিযান চলাকালে লেকের পারের রাস্তার পাশের কয়েকটি স্থাপনা ভাঙার পর রাপা প্লাজার পেছনে ১৬ নম্বর সড়কের ২৭ নম্বর বাড়ি (এমপি মনোয়ার হোসেন চৌধুরীর বাড়ির) সীমানাপ্রাচীর ভেঙে দেওয়া হয়। এ ছাড়া ৪০ বছরের পুরনো কয়েকটি বড় গাছও কাটা পড়ে।

সংসদ সদস্য মনোয়ার হোসেন চৌধুরী  বলেন, ‘১৯৫৮ সালে আমার শাশুড়ি সামছুন্নাহার আহমেদের নামে এই বাড়ির সাড়ে ১৭ কাঠা জমি বরাদ্দ দেয় পিডাব্লিউডি। আমার শ্বশুর সুজাউদ্দিন আহমেদ পিডাব্লিউডির প্রধান প্রকৌশলী থাকা অবস্থায় এই জায়গার বরাদ্দ পাওয়া যায়। পরে বাড়িটি আমার শাশুড়ি আমার নামে লিখে দেন। উনার বড় জামাই আমার ভায়রাও পিডাব্লিউডির প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন। ’  মনোয়ার হোসেনের অভিযোগ, সকালে কোনো নোটিশ না দিয়েই তারা বাড়িটি ভাঙতে আসে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা মো. রাসেল সাবরিন বলেন, লেকের পাশে হাঁটার রাস্তা দখল করে যে স্থাপনা ছিল তা ভাঙা হচ্ছে। যারা অভিযোগ করছে সেটা সঠিক নয়।



সাতদিনের সেরা