kalerkantho

বুধবার । ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৮ ডিসেম্বর ২০২১। ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

এসএসসি ও সমমান

পরীক্ষা শেষের এক মাসের মধ্যে ফল

আগামী বছরের পরীক্ষাও পেছাচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চলতি বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা আগামী ১৪ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে। পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি আরো জানান, আগামী বছরের এসএসসি পরীক্ষাও আগের মতো ফেব্রুয়ারিতে হচ্ছে না। কবে, কিভাবে হবে তা পরে জানানো হবে।

গতকাল বুধবার সচিবালয়ে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা জানান।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর এ বছরের ১২ সেপ্টেম্বর দেশের সব স্কুল ও কলেজ খুলে দেওয়া হয়েছে। করোনার কারণে সরকারকে এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পিছিয়ে দিতে হয়েছে। এবার পরীক্ষা হবে গ্রুপভিত্তিক নৈর্বাচনিক বিষয়ে। এসএসসি পরীক্ষা সাধারণত প্রতিবছরের ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হয়।

গত বছর মার্চে দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার আগে নির্ধারিত সময় অনুযায়ী এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা নেওয়া হয়েছিল, কিন্তু এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি। সে কারণে এই পরীক্ষার ফল দেওয়া হয় বিশেষ ব্যবস্থায়।

গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার নম্বর বিভাজন নির্দেশিকার তথ্য তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সে অনুযায়ী, এবার রচনামূলক ও নৈর্ব্যক্তিক (এমসিকিউ) প্রশ্ন বেছে নেওয়ার বিস্তর সুযোগ থাকছে। বিজ্ঞান বিভাগে রচনামূলকে আটটি প্রশ্ন থেকে দুটি এবং এমসিকিউতে ২৫টি প্রশ্ন থেকে ১২টির উত্তর করতে হবে। এ ছাড়া অন্যান্য বিভাগে রচনামূলকে ১১টি প্রশ্ন থেকে তিনটি এবং এমসিকিউতে ৩০টি প্রশ্ন থেকে ১৫টির উত্তর করতে হবে।

নম্বর বিভাজন নির্দেশিকায় বলা হয়, নৈর্বাচনিক প্রতিটি বিষয়ের রচনামূলক অংশের জন্য সময় সোয়া এক ঘণ্টা এবং এমসিকিউ অংশের জন্য সময় থাকবে ১৫ মিনিট। পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন, উচ্চতর গণিত ও জীববিজ্ঞানে রচনামূলকে আটটি করে প্রশ্ন থাকবে, দুটি করে প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। প্রতিটি প্রশ্নের মান হবে ১০ করে। আর ২৫টি এমসিকিউ থেকে ১২টির উত্তর দিতে হবে, প্রতিটির মান হবে ১। ২৫ নম্বরের ব্যাবহারিক পরীক্ষা স্কুল গ্রহণ করবে।

এ ছাড়া হিসাববিজ্ঞান, ব্যবসায় উদ্যোগ, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং, বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা, ভূগোল ও পরিবেশ, পৌরনীতি ও নাগরিকতা এবং অর্থনীতি বিষয়ে রচনামূলকে ১১টি প্রশ্ন থেকে তিনটির উত্তর দিতে হবে। প্রতিটির মান হবে ১০। এমসিকিউ অংশে ৩০টি থেকে প্রতিটি ১ নম্বরের ১৫টির উত্তর দিতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার মোট পরীক্ষার্থী ২২ লাখ ২৭ হাজার ১১৩ জন। ১৮ লাখ ৯৯৮ জন ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এসএসসি, তিন লাখ এক হাজার ৮৮৭ জন মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে দাখিল এবং এক লাখ ২৪ হাজার ২২৮ জন কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষায় বসবে। তিন হাজার ৬৭৯ কেন্দ্রে এই পরীক্ষা হবে। এর মধ্যে সাধারণ বোর্ডের দুই হাজার ২০৯টি, মাদরাসা বোর্ডের ৭১০টি এবং ভোকেশনালের ৭৬০টি কেন্দ্র থাকছে। বিদেশের ৯টি কেন্দ্রেও পরীক্ষা নেওয়া হবে।

এসএসসি পরীক্ষা সামনে রেখে আগামী ৮ নভেম্বর থেকে ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত দেশের সব কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে বলেও জানান মন্ত্রী।

দীপু মনি বলেন, এবারের এসএসসি পরীক্ষা ২৩ নভেম্বর শেষ হবে। ২০২২ সালের ১ ফেব্রুয়ারি এই পরীক্ষাটি নেওয়া সম্ভব হবে না। কারণ যারা পরীক্ষা দেবে তাদের পাঠদানের বিষয় আছে।

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম খান, আন্ত শিক্ষা বোর্ড সভাপতি অধ্যাপক নেহাল আহমেদ এবং বিভিন্ন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।



সাতদিনের সেরা