kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

অভিমানের ২৮ বছর

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি   

২৮ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



অভিমানের ২৮ বছর

যশোরের অভয়নগরে বাচ্চু মণ্ডলকে (ডান থেকে দ্বিতীয়) গতকাল পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ছবি : কালের কণ্ঠ

বাচ্চু মণ্ডল (৬৪)। গ্রামের বাড়ি কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পলাশপুরে। ১৯৯৩ সালে স্ত্রীর ওপর অভিমান করে ঘর ছেড়েছিলেন তিনি। এরপর একে একে কেটে গেছে ২৮ বছর। তাঁর নতুন ঠিকানা ছিল যশোরের অভয়নগর উপজেলার সুন্দলী ইউনিয়ন পরিষদ। এখানে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে মিলেমিশে দীর্ঘ সময় বসবাস করেছেন তিনি। অবশেষে সন্ধান পাওয়ার পর পরিবারের সদস্যরা গত মঙ্গলবার রাতে তাঁকে বুঝিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে গেছে।

সুন্দলী ইউপি চেয়ারম্যান বিকাশ রায় কপিলের মধ্যস্থতায় ইউপি সদস্য, সাংবাদিক ও সুধীজনদের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বাচ্চু মণ্ডলকে তাঁর পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বাচ্চু মণ্ডল কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার পলাশপুর গ্রামের মৃত কান্দুরা মাহমুদ মণ্ডলের ছেলে। দুই চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়া চোখের জল মুছে বাচ্চু মণ্ডল আরো বলেন, ‘দীর্ঘ ২৮ বছর ধরে আমি সনাতন ধর্মের মানুষের সঙ্গে বসবাস করেছি। তারা আমাকে ভাই হিসেবে সম্মান ও শ্রদ্ধা করেছে। আমি সুন্দলী ইউনিয়নবাসীর কাছে ঋণী।’

বাচ্চু মণ্ডলের ভাতিজা শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘চাচা নিখোঁজ হওয়ার পর আমরা অনেক খোঁজাখুঁজি করেছি। এক পর্যায়ে চাচার আশা ছেড়েইে দিয়েছিলাম। সম্প্রতি আমাদের এলাকার গ্রাম পুলিশ অসিত বিশ্বাসের মাধ্যমে চাচার সন্ধান পেলাম।’

সুন্দলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিকাশ রায় কপিল বলেন, ‘বাচ্চু মণ্ডলের পরিবার আছে—এ কথা এতোদিন কাউকে বলেননি।’



সাতদিনের সেরা