kalerkantho

শনিবার । ১৫ মাঘ ১৪২৮। ২৯ জানুয়ারি ২০২২। ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

শহীদ মিনারে সম্প্রীতি সমাবেশ

সাম্প্রদায়িক হামলায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ ৭ দাবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৬ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ সাত দফা দাবি জানানো হয়েছে শহীদ মিনারে ৮৯টি সংগঠনের সম্প্রীতি সমাবেশ থেকে। গতকাল সোমবার বিকেলে শহীদ মিনারে ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ এই সমাবেশের আয়োজন করে। সমাবেশে সাত দফা দাবি পড়ে শোনান সম্প্রীতি বাংলাদেশের আহ্বায়ক নাট্যব্যক্তিত্ব পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

দাবিগুলোর মধ্যে রয়েছে সাম্প্রতিক ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করা, অতীতের ঘটনার দ্রুত বিচার শেষ করা, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট হয়, এমন ঘটনা আর যেন না ঘটে সে জন্য প্রশাসনের তৎপরতা, সাম্প্রতিক ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর, উপাসনালয় দ্রুত সংস্কারের ব্যবস্থা করা, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং বাঙালি জাতীয়তাবাদসহ শিক্ষাব্যবস্থায় মানবিক মূল্যবোধ ও সহনশীলতার বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা, আবহমান বাংলার সংস্কৃতিচর্চায় তরুণ ও যুবসমাজকে অধিকতর সম্পৃক্ত করা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ও উসকানি বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া।

বিজ্ঞাপন

সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ‘সম্প্রতি সাম্প্রদায়িক সহিংসতার যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, সেগুলোকে এক ধরনের রাজনৈতিক সাম্প্রদায়িকতা বলে মনে হয়েছে। তা যদি হয়ে থাকে, তাহলে অসাম্প্রদায়িক-মানবিক চেতনায় বিশ্বাসী মানুষগুলোকে সহমত জ্ঞাপন করে এক মঞ্চে আসতে হবে। এই অপশক্তি অন্য কোনো গ্রহ থেকে আসে না। যেখানে অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে, সেখানেই প্রতিবাদ-প্রতিরোধ গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি। ’

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধারা এখনো বেঁচে আছে, সবাই মরে যায়নি। ধর্মীয় উগ্রবাদ বন্ধ করো, এসব থামাও। না পারলে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে ক্ষমতা দাও। কিভাবে উগ্রবাদীদের দমাতে হয়, সেটা আমরা জানি। ’

সমাবেশে আরো বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক কামরুল হাসান খান, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক নিজামুল হক ভূঁইয়া, জগন্নাথ হলের সাবেক প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক অসীম সরকার, একাত্তরের ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটির সহসম্পাদক অধ্যাপক নুজাহাত চৌধুরী, প্রজন্ম একাত্তরের সভাপতি আসিফ মুনীর চৌধুরী, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক, বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোট সভাপতি মাওলানা জিয়াউল হাসান, বাংলাদেশ বুড্ডিস্ট ফেডারেশনের নির্বাহী সভাপতি অশোক বড়ুয়া, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পষিদের সহসভাপতি জে এল ভৌমিক, যুবমৈত্রীর সভাপতি সাব্বাহ আলী খান কলিন্স, গৌরব একাত্তরের সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন, ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক সনজিত চন্দ্র দাস, বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ফোরামের সভাপতি কবির চৌধুরী তন্ময়, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন প্রমুখ।



সাতদিনের সেরা