kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয় : টিআইবি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২০ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দুর্গাপূজা ঘিরে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। সংস্থাটি বলছে, রাজনৈতিক দোষারোপের ঘেরাটোপে আটকে এসব ঘটনার বিচার না হওয়ায় নিয়মিত বিরতিতে এ ধরনের সহিংসতা ঘটছে। তাই এই ধারাবাহিক সহিংসতাকে আর বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলার সুযোগ নেই।

গতকাল মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশব্যাপী হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির, বাড়িঘর, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসহ জীবন-জীবিকার ওপর সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীসহ মাঠ প্রশাসন দুঃখজনক ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

ঘটনা ঘটে যাওয়ার পর শতাধিক মামলায় কয়েক হাজার আসামি করা হয়েছে; অথচ চিরাচরিত রাজনৈতিক দোষারোপের বাইরে এখন পর্যন্ত বেশির ভাগ স্থানেই প্রকৃত অপরাধীদের চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি। ’

তিনি বলেন, ‘বিগত এক দশকে তিন হাজারেরও বেশি সহিংস হামলা হয়েছে। এ সময়ে ভিন্নধর্মাবলম্বীদের দেড় হাজারেরও বেশি বাড়িঘর, প্রতিমা, পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করা হয়েছে। এর একটি ঘটনায়ও আমরা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির তথ্য পাই না। সাম্প্রদায়িক শক্তির প্রতি রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতার পাশাপাশি বিচারহীনতার এই সংস্কৃতিই হামলাকারীদের আরো উসকে দিচ্ছে এবং সাম্প্রদায়িকতার বীজ জিইয়ে রেখেছে। ’

২০০১ সালের নির্বাচনের পর সংঘটিত সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় হাইকোর্ট গঠিত শাহাবুদ্দিন কমিশন ২০১২ সালে যে প্রতিবেদন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছিল, তা আজও কেন প্রকাশ করা হলো না সে প্রশ্ন রাখেন ড. ইফতেখারুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘এই কমিশন প্রায় ১৮ হাজার সহিংসতার ঘটনার বিপরীতে জমা পড়া পাঁচ হাজার ৫৭৯টি অভিযোগের মধ্যে তিন হাজার ৬২৫টি অভিযোগের তদন্ত করে এক হাজার ৭৮ পৃষ্ঠার যে বিশাল প্রতিবেদন জমা দিল, আমরা জানতেও পারলাম না যে সেখানে কী সুপারিশ ছিল। ’



সাতদিনের সেরা