kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস আজ

নাহারের জীবনের গল্পটি ভিন্ন

১৫ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



নাহারের জীবনের গল্পটি ভিন্ন

গ্রামের অন্য নারীদের থেকে কামরুন নাহারের বেঁচে থাকার গল্পটি ভিন্ন। রংপুরের বেনুঘাট ময়নাকুঠি এলাকায় নাহারের স্বামী আছে, সন্তান আছে। তার পরও আট বছর ধরে তাঁকে টানতে হচ্ছে সংসারের ‘ঘানি’।

স্বামী রবিউল একসময় রিকশা চালিয়ে ভালোভাবেই সংসার চালাতেন।

বিজ্ঞাপন

বড় ছেলে মাহিন আলম সপ্তম শ্রেণিতে পড়ছিল আর ছোট মেয়ে লামিয়া আখতারকে একটি মাদরাসায় ভর্তি করিয়েছেন। এ সময়ই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন রবিউল। গ্রামবাসীর সাহায্যের টাকায় রবিউলকে চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ করে তোলেন নাহার। পরে রবিউলের মানসিক সমস্যা দেখা দেয়। শারীরিকভাবে কাজ করতেও অক্ষম হয়ে পড়েন। বাধ্য হয়ে সংসারের হাল ধরেন নাহার। শুরু করেন ভ্যানে করে বিভিন্ন গ্রামে ও এলাকায় ঘুরে ঘুরে নারকেল, আমড়া, পেয়ারা, প্লাটিক পণ্য, চানাচুর, মুড়ি, আচার বিক্রি। পাশাপাশি সকালে শামরার বাজারে ও রাতে চওয়া হাটে ভ্যানে পসরা সাজিয়ে বিক্রি করেন। শীতকালে ভাপা পিঠাও বেচেন। এসবের আয় থেকেই সংসার চালাচ্ছেন নাহার।

গতকাল কামরুন নাহার কালের কণ্ঠকে জানান, গ্রামের মানুষ তাঁর এই ভ্যান চালিয়ে পণ্য বিক্রি করাকে ভালো চোখে দেখে না। অনেকেই বাজে কথা বলে। সেই দুঃখে একবার তিনি বিষ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছিলেন।

কথা ও ছবি : আদর রহমান



সাতদিনের সেরা