kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ মাঘ ১৪২৮। ২৫ জানুয়ারি ২০২২। ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

সংক্ষিপ্ত

বরেণ্য কথাসাহিত্যিক রশীদ হায়দারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বরেণ্য কথাসাহিত্যিক রশীদ হায়দারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

একুশে পদকপ্রাপ্ত বরেণ্য কথাসাহিত্যিক, সম্পাদক, গবেষক ও নজরুল ইনস্টিটিউটের সাবেক নির্বাহী পরিচালক রশীদ হায়দারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বুধবার। গত বছরের এই দিনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুলার রোডে মেয়ের বাসায় তাঁর জীবনাবসান হয়। রশীদ হায়দারের জন্ম ১৯৪১ সালের ১৫ জুলাই পাবনার দোহারপাড়ায়। সাহিত্য ও সংস্কৃতির নানা শাখায় অবদানের জন্য তাঁর অন্য ভাইয়েরাও স্বনামখ্যাত।

বিজ্ঞাপন

১৯৬৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন রশীদ হায়দার। ১৯৬১ সালে তৎকালীন জনপ্রিয় পত্রিকা চিত্রালীতে কাজ শুরু করেন তিনি। বড় ভাই জিয়া হায়দারও চিত্রালীতে কাজ করতেন। ১৯৬৪ সালে চিত্রালীর পাশাপাশি পাকিস্তান রাইটার্স গিল্ডের মুখপত্র পরিক্রম পত্রিকার সহকারী সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। পরে ১৯৭০ সালে পাকিস্তান কৃষি উন্নয়ন ব্যাংকের ত্রৈমাসিক কৃষিঋণ পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন তিনি। ১৯৭২ সালে তিনি বাংলা একাডেমিতে কাজ শুরু করেন। দীর্ঘদিন চাকরির পর ১৯৯৯ সালে বাংলা একাডেমির পরিচালক পদ থেকে অবসরে যান। রশীদ হায়দারের নানকুর বোধি, চিম্বুকের নিচে, আলোর প্রভা, তিনটি প্রায়োপন্যাস, বাংলাদেশের খেলাধুলা, মুক্তিযুদ্ধের নির্বাচিত গল্প, সামান্য সঞ্চয় (নির্বাচিত গল্প সংকলন), স্মৃতি ’৭১ (১৩ খণ্ড),  ১৯৭১ : ভয়াবহ অভিজ্ঞতা, শহীদ বুদ্ধিজীবী কোষ, খুঁজে ফিরি ও অসম বৃক্ষসহ ৭০টির বেশি গ্রন্থ রয়েছে।   বাংলা একাডেমিতে কর্মরত অবস্থায় রশীদ হায়দারের শ্রেষ্ঠ কীর্তি মুক্তিযুদ্ধে স্বজন হারানো মানুষের স্মৃতিচারণায় ১৩ খণ্ডের ‘স্মৃতি : ১৯৭১’। সাহিত্যে অবদানের জন্য রশীদ হায়দার বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৮৪), একুশে পদক (২০১৪), হুমায়ুন কাদির পুরস্কার, পাবনা জেলা সমিতি স্বর্ণপদক, রাজশাহী সাহিত্য পরিষদ পুরস্কার, অগ্রণী ব্যাংক পুরস্কারসহ বহু পুরস্কারে ভূষিত হন। মেয়ে শাওন্তী হায়দার গণমাধ্যমকে জানান, রশীদ হায়দারের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে পারিবারিকভাবে তাঁকে স্মরণ করা হবে। কোনো অনুষ্ঠান হচ্ছে না। কিছুদিনের মধ্যে তাঁর একটি স্মৃতিচারণামূলক গ্রন্থ প্রকাশ হবে। তখন স্মরণসভার আয়োজন করা হবে।



সাতদিনের সেরা