kalerkantho

রবিবার । ৯ মাঘ ১৪২৮। ২৩ জানুয়ারি ২০২২। ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ঢাবিতে ফিরেছে প্রাণ, খুলছে চবি শাবিপ্রবির হলও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৬ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



ঢাবিতে ফিরেছে প্রাণ, খুলছে চবি শাবিপ্রবির হলও

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় : দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর গতকাল খুলেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল। রেজিস্টারের সঙ্গে নাম মিলিয়ে নিজ নিজ হলে ঢুকতে দেওয়া হয় ছাত্র-ছাত্রীদের। ছবি : কালের কণ্ঠ

মুখে মাস্ক, সঙ্গে ব্যাগ। শারীরিক দূরত্ব মেনে হলের ফটকে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়ানো শিক্ষার্থীরা। যাঁরাই ভেতরে ঢুকছেন তাঁদের মাস্ক, রজনীগন্ধা ফুল আর চকোলেট দিয়ে বরণ করে নিচ্ছেন শিক্ষক ও কর্মকর্তারা। ভেতরে ঢোকার আগে যন্ত্র দিয়ে কর্মচারীরা পরীক্ষা করছেন শরীরের তাপমাত্রা।

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ মুখেই রয়েছে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা। গতকাল মঙ্গলবার সকালে এমনই ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোর চিত্র। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে দেড় বছর বন্ধ থাকার পর শিক্ষার্থীদের একটি অংশের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে আবাসিক হলগুলো।

এক ডোজ টিকা নেওয়ার শর্তে আগামী ১০ অক্টোবর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরাও হলে উঠতে পারবেন। গতকাল সন্ধ্যায় প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির এক জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় শিক্ষার্থীদের শতভাগ টিকার আওতায় এনে আগামী ১৬ অক্টোবর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করার বিষয়ে আলোচনা হয়। তবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে সিডিন্ডকেট।

এদিকে চলতি মাসেই খুলছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

আমাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি জানান, স্নাতক (সম্মান) চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীরা এক ডোজ টিকা নেওয়ার সনদ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচয়পত্র দেখিয়ে হলে উঠেছেন। হলে এই শিক্ষার্থীদের ‘স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি)’ মেনে চলতে হবে। শিগগিরই বাকি শিক্ষার্থীদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

প্রায় এক মাস ধরে ধুয়ে মুছে প্রস্তুত করা হয় হলগুলো। দেয়ালে পড়েছে নতুন রং, বাগানে নতুন করে লাগানো হয়েছে ফুলগাছ। মাঠের ঘাস ছেঁটে ছোট করা হয়েছে। দীর্ঘদিনের ধুলোয় মলিন ডাইনিং, ক্যান্টিন, ক্যাফেটেরিয়া, রিডিং রুম সবই পরিষ্কার করা হয়েছে। সংস্কার করা হয়েছে কোনো কোনো হল। মেডিক্যাল সেন্টারের পাশাপাশি কয়েকটি হলে আইসোলেশন সেন্টার প্রস্তুত করা হয়েছে।

গতকাল সকাল ৮টার দিকে হলগুলো খুলে দেওয়ার পর শিক্ষার্থীদের পদচারণে প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। শিক্ষার্থীরা কিভাবে হলে থাকবেন, পাঠকক্ষ ব্যবহার করবেন, মসজিদে নামাজ পড়া ও ক্যান্টিনে খাবার খেতে গেলে কী করতে হবে সে বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সেগুলো শিক্ষার্থীদের মানতে হবে।

স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের দুই বর্ষের শিক্ষার্থীরা হলে ওঠার পর এখন অপেক্ষা শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করার। সেই সিদ্ধান্তও দ্রুত সময়ে আসবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

দেশে করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর গত বছরের ১৭ মার্চ সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে। তখন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ও বন্ধ ছিল। গত ১৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট ৫ অক্টোবর হল খোলার এবং তার আগে গ্রন্থাগার ও বিভাগীয় সেমিনার খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর গত ২৭ সেপ্টেম্বর গ্রন্থাগার ও বিভাগী সেমিনার খুলে দেওয়া হয়।

গতকাল হল খোলার প্রথম দিনেই পরিদর্শনে যান উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান। সকাল ১০টায় বিজয় একাত্তর হলে যান তিনি। পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকে আমাদের জন্য একটি আনন্দের দিন, একেবারে ঈদের দিনের মতো। এই হল, এই ক্যাম্পাস শিক্ষার্থীদের জন্য, তাদেরকে পেয়ে শিক্ষকদের মাঝেও প্রাণচাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। ’

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক প্রাধ্যক্ষ কালের কণ্ঠকে বলেন, আগামী ৭ অক্টোবর থেকে টিএসসিতে ভোটার নিবন্ধন কেন্দ্র স্থাপনের ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যেসব শিক্ষার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্র নেই, তাঁরা এই কেন্দ্র থেকে নিবন্ধনের মাধ্যমে দ্রুত পরিচয়পত্র করতে পারবেন।

চট্টগ্রাম থেকে আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সব আবাসিক হল খুলে দেওয়া হবে। গতকাল বিষয়টি কালের কণ্ঠকে নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর রবিউল হাসান ভূঁইয়া। তিনি বলেন, ‘গত রাতে এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। শিক্ষার্থীদের সবাইকে টিকাকার্ড দেখিয়ে হলে প্রবেশ করতে হবে। যাদের ন্যূনতম এক ডোজ টিকা নেওয়া আছে শুধু তারাই উঠতে পারবে। ’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি জানান, আগামী ২৫ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খুলবে। ওই দিন স্নাতকোত্তর আবাসিক শিক্ষার্থীরা হলে উঠতে পারবেন। পরের দিন ২৬ অক্টোবর স্নাতক (সম্মান) চতুর্থ বর্ষ, ২৭ অক্টোবর তৃৃতীয় বর্ষ এবং ২৮ অক্টোবর দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা উঠবেন। গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এই সিদ্ধান্ত হয় বলে জানিয়েছেন রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন।



সাতদিনের সেরা