kalerkantho

শনিবার ।  ২১ মে ২০২২ । ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৯ শাওয়াল ১৪৪৩  

থানা ও রেলওয়ে পুলিশের ঠেলাঠেলি

১৯ ঘণ্টা পর উদ্ধার শ্রমিকের লাশ

কালিয়াকৈর

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি   

৩ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গাজীপুরের কালিয়াকৈরে রাসেল নামের এক পোশাক শ্রমিকের লাশ উদ্ধার নিয়ে কালিয়াকৈর থানা ও রেলওয়ে পুলিশের দিনভর ঠেলাঠেলি করার অভিযোগ উঠেছে। কালিয়াকৈর থানা পুলিশ বলছে, এটা আমাদের নয়, অন্যদিকে রেলওয়ে পুলিশ বলছে, এটা আমাদের সীমানায় নয়। একবার থানা পুলিশ উদ্ধার করতে গিয়ে ফিরে আসে। আবার রেলওয়ে পুলিশ উদ্ধার করতে গিয়ে ফিরে আসে।

বিজ্ঞাপন

অবশেষে ঘটনার ১৯ ঘণ্টা পর গতকাল শনিবার দুপুর ২টার দিকে জয়দেবপুর রেলওয়ে পুলিশ লাশটি উদ্ধার করে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কালামপুর এলাকায়।

নিহত রাসেল হাসান (৩২) কালামপুর এলাকার আব্দুল সামাদের ছেলে। তিনি স্থানীয় এপেক্স কারখানার লাইন সুপারভাইজার ছিলেন।

নিহতের পরিবার, এলাকাবাসী, থানা ও রেলওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রাসেল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে মোবাইলে ফোন পেয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফেরেননি। পরে রাত ৮টার দিকে পাশের খাজারডেক এলাকায় জয়দেবপুর-রাজশাহী রেললাইনের পাশে রাসেলের লাশ পড়ে থাকতে দেখে পরিবারকে খবর দেয় স্থানীয় লোকজন। খবর পেয়ে  এলাকাবাসীর সহায়তায় পরিবারের লোকজন নিহতের লাশ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। প্রথমে ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়েছে—এমন ভাবলেও পরে লাশ দেখে পরিবারসহ স্থানীয় লোকজনের সন্দেহ হয়। এ সময় স্থানীয় লোকজন ৯৯৯-এ ফোন দিলে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ নিহতের বাড়িতে যায়। কিন্তু তারা নিহতের লাশ উদ্ধার না করে রেলওয়ে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে স্থানীয় রেলস্টেশনের লোকজন নিহতের লাশ উদ্ধার না করে চলে যায়। কিন্তু রাতে লাশ দাফন না হলে পরের দিন শনিবার সকালে আবারও কালিয়াকৈর থানা পুলিশের এসআই আবুল কালাম নিহতের বাড়িতে যান। নানা জটিলতার কথা জানিয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার না করে ফিরে আসে থানা পুলিশ। দুপুরে রেলওয়ে পুলিশ নিহতের বাড়িতে গিয়ে তারাও জটিলতা দেখিয়ে লাশ উদ্ধারে অনীহা প্রকাশ করে। অবশেষে নানা আলোচনা-সমালোচনা শেষে ঘটনার ১৯ ঘণ্টা পর দুপুর ২টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

জয়দেবপুর রেল জংশনের উপপরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম বলেন, লাশটি রেললাইনের পাশে না থাকায় একটু জটিলতার সৃষ্টি হলে উদ্ধারে বিলম্ব হয়। পরে লাশটি  উদ্ধার করা হয়েছে।

কালিয়াকৈর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম বলেন, ‘নিহতের লাশ রেললাইনের পাশে পড়ে থাকায় এটা থানার আওতায় পড়ে না। এ কারণেই আমরা লাশ উদ্ধার করতে পারিনি। পরে রেলওয়ে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করেছে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। ’



সাতদিনের সেরা