kalerkantho

রবিবার । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ২৮ নভেম্বর ২০২১। ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

বিমানবন্দরে করোনা পরীক্ষা

ইউএইর সম্মতি মেলেনি এখনো

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



করোনা পরীক্ষায় ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থাপন করা ল্যাবের ফল গ্রহণের বিষয়ে এখনো সম্মতি দেয়নি সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই)। গতকাল মঙ্গলবার ঢাকায় সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫তম জন্মদিন উদযাপন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী এ কথা জানান। তিনি বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত সম্মতি দিলেই হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ছয়টি আরটি পিসিআর ল্যাব চালু হবে।

বাংলাদেশ থেকে যাত্রী যাওয়ার ক্ষেত্রে যাত্রা শুরুর আগে বিমানবন্দরে করোনার আরটি পিসিআর পরীক্ষার শর্ত দিয়েছে ইউএই। প্রধানমন্ত্রী গত ৬ সেপ্টেম্বর মন্ত্রিসভা বৈঠকে দেশের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলোতে করোনার জন্য পিসিআর পরীক্ষা নিশ্চিত করার নির্দেশনা দেন। এরপর ছয়টি প্রতিষ্ঠানকে ঢাকায় বিমানবন্দরে ল্যাব চালুর অনুমতি দেওয়া হয়।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘গত রবিবার বিমানবন্দরে ল্যাব স্থাপন করা হয়েছে। ওই দিনই আমরা রিপোর্টও পেয়েছি, সেগুলো আমিরাতে পাঠানো হয়েছে। তারা যাত্রার ছয় ঘণ্টা আগে পিসিআর পরীক্ষার শর্ত দিয়েছিল, তাদের অ্যাপ্রুভাল (অনুমোদন) লাগবে। তারা অনুমোদন এখন পর্যন্ত দেয়নি। সবাই চেষ্টা করে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘যেহেতু আমিরাত থেকে অ্যাপ্রুভাল আসেনি, সেহেতু এটা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা রয়ে গেছে। আমরা ধারাবাহিকভাবে চেষ্টা করে যাচ্ছি। একটি ফ্লাইট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, যাতে অতিদ্রুত ছয়টি ল্যাবের অনুমোদন দেওয়া হয়।’ কবে নাগাদ আরব আমিরাতের অনুমোদন পাওয়া যেতে পারে, এমন প্রশ্নে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এটা আরব আমিরাত সরকারের সিদ্ধান্ত। আমরা পারসিউ করছি, যাতে সিদ্ধান্ত দ্রুত আসে। আরব আমিরাতে যেতে হলে তাদের এ শর্ত পূরণ করতে হবে। আমরা সরকারের পক্ষ থেকে পারসিউ করছি। প্রত্যাশা করছি, এটার দ্রুত সমাধান হবে।’

মাহবুব আলী বলেন, ‘সংযুক্ত আরব আমিরাত এখন পর্যন্ত একটি কম্পানির এসওপি অনুমোদন করেছে, বাকি ছয় কম্পানির বিষয়টি অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে। এখন সংযুক্ত আরব আমিরাত এসওপিগুলোর অনুমোদন দিলেই পুরোদমে পরীক্ষা শুরু করা হবে। দ্রুত এসওপির অনুমোদন পেতে বিষয়টি নিয়ে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান সংযুক্ত আরব আমিরাত কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে আমি এবং সচিব বিষয়টি সার্বক্ষণিক তদারকি করছি।’

বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার পর প্রথম দিন থেকেই সিভিল এভিয়েশনের পক্ষ থেকে জায়গা নির্ধারণ করে দিয়েছিলাম। পরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও প্রবাসী কল্যাণ থেকে একটা জায়গা নির্ধারণ করে। ওই জায়গায়ও আমাদের ল্যাব স্থাপন হয়ে গেছে।’



সাতদিনের সেরা