kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাংলাদেশ হেলথ ওয়াচ ও উন্নয়ন সমুন্বয়ের সংলাপ

নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে সবাইকে একযোগে কাজ করার তাগিদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



স্বাস্থ্য খাত বিষয়ে নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে সব পক্ষকে একযোগে কাজ করার তাগিদ দিয়েছেন বাংলাদেশ হেলথ ওয়াচ ও উন্নয়ন সমুন্বয়ের সংলাপে অংশ নেওয়া বিশিষ্ট ব্যক্তিরা। গতকাল শনিবার এ সংলাপ (ওয়েবিনার) অনুষ্ঠিত হয়।

সংলাপে বলা হয়, ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগে প্রকাশিত রাজনৈতিক দলগুলোর ইশতেহারে স্বাস্থ্যসেবার সার্বিক মানোন্নয়নের জন্য যে অঙ্গীকারগুলো করা হয়েছিল সেগুলো করোনা-পরবর্তী বাস্তবতায় আরো বেশি প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠেছে। এরই মধ্যে তিনটি অর্থবছরের বাজেটে এ লক্ষ্যে উল্লেখযোগ্য বরাদ্দ দেওয়া হলেও এখনো আরো অনেক দূর যেতে হবে। তবে এসব লক্ষ্য পূরণ সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। সরকারের বাইরে থাকা অংশীজনদেরও সরকারের পরিপূরক ভূমিকা নিতে হবে।

বাংলাদেশ হেলথ ওয়াচ, ব্র্যাক জেমস পি গ্রান্ট স্কুল অব পাবলিক হেলথ ও উন্নয়ন সমুন্বয়ের যৌথ এ আয়োজনে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন উন্নয়ন সমুন্বয়ের সভাপতি, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গর্ভনর অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান। আলোচনা করেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, স্বাস্থ্যবিষয়ক সংসদীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. আ ফ ম রুহুল হক, সংসদ সদস্য ড. হাবিবে মিল্লাত, ড. সামিল উদ্দিন আহম্মেদ শিমুল, শামীম হায়দার পাটোয়ারী ও গ্লোরিয়া ঝর্ণা সরকার, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও বাংলাদেশ হেলথ ওয়াচের ওয়ার্কিং গ্রুপের সদস্য ড. রুমানা হকসহ অন্যরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন গণমাধ্যমকর্মী মিথিলা ফারজানা।

আতিউর রহমান মূল নিবন্ধে বলেন, স্বাস্থ্যসেবার মানোন্নয়নের প্রতিশ্রুতি কতটা বাস্তবায়িত হচ্ছে, তা বুঝতে শুধু বাজেট বরাদ্দ নিয়ে বিশ্লেষণ করার চেয়ে ওই বরাদ্দ দিয়ে কী কী লক্ষ্য অর্জন করার চেষ্টা হচ্ছে তা-ও বিবেচনায় নেওয়া দরকার। এ জন্য সরকারের মধ্যম মেয়াদি বাজেট কাঠামো বা এমটিবিএফে নতুন নতুন কর্মকৃতি নির্দেশক বা কি পারফরম্যান্স ইন্ডিকেটর যুক্ত করা উচিত।

অধ্যাপক রুহুল হক বলেন, জনগণের দোরগোড়ায় মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছাতে হলে স্বাস্থ্য খাতে পর্যাপ্ত জনবল নিশ্চিত করাকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া দরকার।



সাতদিনের সেরা